ওয়েটার

ওয়েটার: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

একজন ওয়েটার রেস্টুরেন্টে গ্রাহকদের অভ্যর্থনার পাশাপাশি খাবারের অর্ডার নেওয়া, খাবার পরিবেশন করা সহ গ্রাহকদের চাহিদা পূরণ, অভিযোগ গ্রহণ ও সুবিধা-অসুবিধার দিকে খেয়াল রাখেন। মূলত ভালো মান ও সুস্বাদু খাবারের পর ওয়েটারের অমায়িক ব্যবহার ও সেবা গ্রাহকদেরকে কোন রেস্টুরেন্টের প্রতি আকৃষ্ট করে।

এক নজরে একজন ওয়েটার

সাধারণ পদবী:ওয়েটার/রেস্টুরেন্ট স্টাফ/বারিস্তা
বিভাগ:হসপিটালিটি
প্রতিষ্ঠানের ধরন:সকল ছোট/বড় রেস্টুরেন্ট, তারকা চিহ্নিত হোটেল, রিসোর্ট
ক্যারিয়ারের ধরন:পার্ট টাইম/ফুল টাইম।
লেভেল:এন্ট্রি
অভিজ্ঞতা সীমা:অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ১-২ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়। তবে স্মার্ট ও দক্ষ হলে প্রয়োজন হয়না
সম্ভাব্য বেতনসীমা:একজন ওয়েটারের বেতন সাধারণত ৬-১৫ হাজার টাকা হয়ে থাকে। যদিও পার্ট টাইম কাজের ক্ষেত্রে টাকা আরো কম । তারকা চিহ্নিত হোটেল গুলোতে আরো বেশি টাকায় চাকুরী পাওয়া যায়।
সম্ভাব্য বয়সসীমা:১৮-৩৫ বছর। তবে অনেকক্ষেত্রে তরুণদের প্রাধান্য দেওয়া হয়।
মূল স্কিল:যোগাযোগে দক্ষ হতে হবে, রেস্টুরেন্টের ফুড মেনু সম্পর্কে জ্ঞান থাকতে হবে, একই সাথে অনেক গ্রাহকের চাপ সামালাতে দক্ষ হতে হবে
বিশেষ স্কিল:উপস্থিতবুদ্ধি, পরিশ্রমী, যে কোন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ, সৌজন্যমূলক আচরণ

কোন ধরণের প্রতিষ্ঠানে একজন ওয়েটার কাজ করেন?

একজন ওয়েটারের কাজ মূলত রেস্টুরেন্টে। ছোট-মাঝারি-বড় সকল ধরনের রেস্টুরেন্ট, চেইন ফুড শপ, ক্যাফে, থাই-চাইনিজ রেস্টুরেন্ট, আইসক্রিম পার্লার, জুস বার, তারকা চিহ্নিত হোটেল, রিসোর্ট সর্বত্রই ওয়েটাররা কাজ করেন। এছাড়া বড় মাপের কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান অভ্যন্তরীণ চাহিদার কথা মাথায় রেখে অনেকসময় ওয়েটার নিয়োগ দেয়।

একজন ওয়েটার কী ধরনের কাজ করেন?

  • গ্রাহককে অভ্যর্থনা জানানো ও আসন গ্রহণে সাহায্য করা;
  • গ্রাহককে রেস্টুরেন্টের ফুড মেনু প্রদান করা ও খাবার সম্পর্কে অবহিত করা;
  • গ্রাহক ফুড চয়েসের ব্যাপারে কোন রকম সাহায্য চাইলে তাকে সহযোগিতা করা;
  • নির্ভুলভাবে অর্ডার নেওয়া এবং তা যথাযথ স্থানে পৌঁছে দেওয়া;
  • খাবার প্রস্তুত হলে খাবার পরিবেশন করা;
  • খাবার প্রস্তুত হতে দেরী হলে গ্রাহককে তা জানানো এবং দুঃখ প্রকাশ করা;
  • খাবারের টেবিল সর্বদা পরিষ্কার ও সুন্দর রাখা;
  • গ্রাহকদের কোন অসুবিধা হলে বা অভিযোগ থাকলে সে দিকে লক্ষ্য রাখা;
  • সময় মত বিল প্রদান করা;
  • একসাথে একাধিক গ্রাহকের দিকে লক্ষ্য রাখা।

একজন ওয়েটারের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

একজন ওয়েটারের ন্যূন্যতম এসএসসি/এইচএসসি পাশ হওয়া উচিত। তবে দক্ষ ও অভিজ্ঞদের বেলায় কিছুটা ছাড় দেওয়া হয়। অনেক জায়গায় ওয়েটার বা সিনিয়র ওয়েটার পদের জন্য হোটেল ম্যানেজমেন্ট এ ডিপ্লোমা ডিগ্রী চাওয়া হয়। যেমন স্পেস এপার্টমেন্টস বারিস্তা কাম ওয়েটার পদের জন্য ন্যূনতম যোগ্যতা হিসেবে হোটেল ম্যানেজমেন্ট এ ডিপ্লোমা ডিগ্রী চেয়েছে।

একজন ওয়েটার কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • একজন ওয়েটারকে অবশ্যই বাংলা ও ইংরেজী উভয় ভাষাতেই পারদর্শী হতে হবে।;
  • যে কোন ধরনের পরিস্থিতি সামালানোর দক্ষতা থাকতে হবে;
  • স্মার্ট হতে হবে;
  • ব্যবহার মার্জিত হওয়া বাঞ্ছনীয়;
  • সারাদিন দাঁড়িয়ে কাজ করার শারীরিক সক্ষমতা থাকতে হবে;
  • রেস্টুরেন্টের ফুড মেনু নিয়ে ধারণা রাখতে হবে;
  • স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতন হতে হবে;
  • টেবিল ম্যানার জানতে হবে;
  • নির্ভুলভাবে অর্ডার নিয়ে তথ্য যথাযথ স্থানে সরবরাহ করতে হবে.

ওয়েটার হতে চাইলে কোথায় পড়াশুনা করবেন?

বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশন এর অধীনস্ত ন্যাশনাল হোটেল এন্ড ট্রেনিং ইনস্টি‌টিউট এ ২ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন হোটেল ম্যানেজমেন্ট এবং ১ বছর মেয়াদী প্রফেশনাল চিপ কোর্স করানো হয়। বাংলাদেশ হোটেল ম্যানেজমেন্ট অ্যান্ড ট্যুরিজম ট্রেনিং ইনস্টিটিউট এ ৩ বছর, ১ বছর ও ৬ মাস মেয়াদী হোটেল ম্যানেজমেন্ট কোর্স করানো হয়। এছাড়া পূর্বাণী ইন্টারন্যাশনাল হোটেল অ্যান্ড ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্ট, হোটেল রাজমণি ঈশা খাঁসহ আরও অনেক জায়গায় ট্যুরিজম অ্যান্ড হোটেল ম্যানেজমেন্টে পড়াশোনা করা ও প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

একজন ওয়েটার কাজের ক্ষেত্র এবং সুযোগ কেমন?

বর্তমানে রাজধানী সহ বড় বড় শহর গুলোতে রেস্টুরেন্ট এর সংখ্যা বাড়ছে। কেএফসি, বিএফসি, পিজ্জা হাট, বার্গার কিং এর মত চেইন ফাস্ট ফুড শপের পাশাপাশি অনেক চাইনিজ, ইটালিয়ান, থাই, মেক্সিকান, এরাবিয়ান কুইজিন রেস্টুরেন্ট চালু হয়েছে। এসব জায়গায় ফুল টাইম কাজের পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষার্থীদের জন্য রয়েছে পার্ট টাইম কাজের সুযোগ। বর্তমানে ঢাকায় সোনারগাঁ, ইন্টারকন্টিনেন্টাল এর পাশাপাশি ওয়েস্টিন, র‍্যাডিসন ব্লু, ঢাকা রিজেন্সি, লা মেরিডিয়ান, আমারি ঢাকা, সিক্স সিজন, প্লাটিনাম স্যুইট ও হোটেল লেকশোর এর মত তারকা চিহ্নিত হোটেল গড়ে উঠেছে। চট্রগ্রাম, সিলেট, কক্সবাজার এর মত পর্যটন কেন্দ্রে গড়ে উঠেছে অসংখ্য হোটেল ও রিসোর্ট। মেরিয়ট ইন্টারন্যাশনাল, হায়াত রিজেন্সির মত নামকরা গ্রুপ বাংলাদেশে পাচ তারকা হোটেল নির্মানের জন্য চুক্তিবদ্ধ হয়েছে। এসব হোটেলের চাহিদা মিটাতে প্রয়োজন অনেক মানসম্মত ওয়েটার। কাজেই ওয়েটার হিসেবে কাজের সুযোগ ও ক্ষেত্র দিন দিন বাড়ছে। এছাড়া ডিগ্রী থাকলে বিদেশেও কাজের সুযোগ রয়েছে।

একজন ওয়েটার মাসিক আয় কেমন?

ফাস্ট ফুড শপ বা রেস্টুরেন্ট গুলোতে ওয়েটারের মাসিক বেতন সাধারণত ৬-১০ হাজার টাকা হয়ে থাকে। তবে বড় বড় রেস্টুরেন্ট গুলোতে প্রচুর টিপস পাওয়া যায়। ফাইভ স্টার হোটেল গুলোতে ওয়েটারের মাসিক বেতন ৮-১০ হাজার টাকা হলেও প্রতি মাসে একজন ওয়েটার হোটেলের সার্ভিস চার্জ বাবদ প্রায় ২০-২৫ হাজার টাকা পান। রিসোর্ট গুলোতে বেতন ১০-১২ হাজার টাকা হয়ে থাকে এবং সার্ভিস চার্জ থেকে আনুমানিক ৮-১০ হাজার টাকা পাওয়া যায়। রিসোর্টে চাকুরীর সুবিধা হলো থাকা-খাওয়ার দায়িত্ব রিসোর্ট কতৃপক্ষ ই নিয়ে থাকে। বড় বড় হোটেল-রেস্টুরেন্ট এ কোন অনুষ্ঠানের সময় পার্ট টাইম কাজের সুযোগ থাকে। এসব ক্ষেত্রে দিনে ৩০০-৫০০ টাকা পাওয়া সম্ভব।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন ওয়েটার ?

প্রথমে ছোট কোন প্রতিষ্ঠানে কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে দক্ষতা আর যোগ্যতা বলে তারকা চিহ্নিত হোটেল গুলোতে ওয়েটার হিসেবে কাজ করার সুযোগ পাওয়া যায়। তারকা চিহ্নিত হোটেলে কাজ করে অনেক ধরনের অভিজ্ঞতা অর্জন সম্ভব। নেতৃত্ব আর ব্যবস্থাপনার দক্ষতা থাকলে ওয়েটার থেকে সিনিয়র ওয়েটার বা চীফ ওয়েটার হওয়া সম্ভব। এছাড়া দেশের বাইরে সৌদি আরব সহ মধ্য প্রাচ্য, মালয়েশিয়াতে ওয়েটার হিসেবে কাজ করার সুযোগ রয়েছে।

বিশেষ কৃতজ্ঞতা

মোঃ আতিকুল ইসলাম, এসিট্যান্ট ম্যানেজার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাব

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।