ডাটা বিশ্লেষণের সফটওয়্যার: ৫ উদাহরণ

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

ডাটা বিশ্লেষণের কাজ করার জন্য মিনিট্যাব(Minitab), ম্যাটলাব(Matlab), স্ট্যাটা(Stata), এসপিএসএস(SPSS) এবং এসএএস(SAS) উল্লেখযোগ্য।

মিনিট্যাব (Minitab)

উইন্ডোজ প্লাটফর্মে সাধারণত ব্যবহৃত হওয়া মিনিটাব ডেভলপ করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তিন জন গবেষক – বারবারা রায়ান, থমাস রায়ান ও ব্রায়ান জয়নার।

ডাটা বিশ্লেষণের জন্য এটি সুপরিচিত। এ সফটওয়্যারটি সহজ ক্যালকুলেশন ও গ্রাফ তৈরীর সুবিধা প্রাদান করে। যা ব্যবহারকারীকে ডাটা বিশ্লেষণ ও ফলাফল ব্যাখ্যাতে অধিকতর মনোযোগ দিতে সাহায্য করে। পরিমাপ পদ্ধতি বিশ্লেষণ, বিভিন্ন গ্রাফিকাল বিশ্লেষণ, অনুমান নির্ভর পরীক্ষাসহ বেশ কিছু বৈশিষ্ট্য রয়েছে এ সফটওয়্যারে। সামাজিক বিজ্ঞানে যারা পড়ালেখা করেন তাদের জন্য বেশ উপযোগী সফটওয়্যার এটি।

ম্যাটলাব (Matlab)

ম্যাটলাব সফটওয়্যারটির ডেভলপার সফটওয়্যার কোম্পানী ম্যাথওয়ার্কস।

ফাংশনাল ডাটা বিশ্লেষণে বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে ম্যাটলাব। ম্যাটলাবের মাধ্যমে অনুসন্ধানমূলক ডাটা বিশ্লেষণ করাও সম্ভব। এছাড়াও পেশায় যারা প্রকৌশলী তারা ম্যাটলাব ব্যবহার করতে পারেন গাণিতিক বেশ কিছু হিসাব-নিকাশ ও সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে। কারণ এর মাধ্যমে ম্যাট্রিক্স, তরঙ্গ বিশ্লেষণ, ফাংশন, ইন্ট্রিগেশন(সমাকলন) প্রভৃতি গুরুত্বপূর্ণ সমস্যা সহজেই সমাধান করা যায়।

স্ট্যাটা (Stata)

১৯৮৫ সালে স্ট্যাটা সফটওয়্যারটি ডেভলপ করে স্ট্যাটাক্রপ। স্ট্যাটা সাধারণত উইন্ডোজ, ম্যাক ও লিনাক্স তিনটি অপারেটিং সিস্টেমেই ব্যবহার করা যায়।

এ সফটওয়্যারের বেশীরভাগ ব্যবহারকারীরা গবেষণার কাজে ব্যবহার করে সফটওয়্যারটি। অর্থনীতি, সমাজবিজ্ঞান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, রোগ-বিস্তার সংক্রান্ত বিদ্যা, বায়োমেডিসিনসহ প্রভৃতি ক্ষেত্রে গবেষণার কাজে ব্যবহার করা হয় এ সফটওয়্যার। এ সফটওয়্যারটির শক্তিশালী দিক হলো – গ্রাফিক্স, ডাটা ম্যানিপুলেশন ও পরিসংখ্যান। বর্তমানে এ সফটওয়্যারে 3-D গ্রাফিক্স সিস্টেমও আছে। অনুসন্ধানমূলক গবেষণার ক্ষেত্রে এটি বহুল ব্যবহৃত।

এসপিএসএস (SPSS)

এ সফটওয়্যারটি প্রাথমিকভাবে ১৯৬৮ সালে SPSS Inc. ডেভেলপ করে। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে IBM Corporation তা অধিগ্রহণ করে নেয়।

একটু বড় পরিসরে যারা কাজ করতে চান, তাদের জন্য এসপিএসএস খুব ভালো একটি সফটওয়্যার হতে পারে। সমাজবিজ্ঞানে পরিসংখ্যান বিশ্লেষণে এটি ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া অন্য সফটওয়্যারগুলোর মত এটিও অনুসন্ধানমূলক গবেষণায় ব্যবহৃত হয়। এর মাধ্যমে অনুমানলব্ধ সিদ্ধান্তে উপনীত হওয়া যায়। বাজার গবেষক, স্বাস্থ্য গবেষক, শিক্ষা গবেষক সকলেই এ সফটওয়্যার ব্যবহার করেন তাদের কাজের জন্য। ডাটার নির্ভরযোগ্যতা পরীক্ষা করতেও এটি ব্যবহার করা হয়। এছাড়া অন্য সফটওয়্যারগুলোর তুলনায় বেশ কিছু সরঞ্জামের বেশী ব্যবহারের সুবিধা, এগিয়ে রাখে এই সফটওয়্যারটিকে।

এসএএস (SAS)

সফটওয়্যারটি ১৯৬৬ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত ডেভলপ করার কাজ করে নর্থ ক্যারোলিনা স্টেট ইউনিভার্সিটি। এরপর SAS Institute এর মাধ্যমে সফটওয়্যারটি বাণিজ্যিকভাবে বাজারে আসে। এটি উইন্ডোজ, ম্যাক, লিনাক্স অপারেটিং সিস্টেমে সাধারণত ব্যবহার করা যায়।

এসএএস সফটওয়্যারটি দুটি পৃথক এডিশনে ভাগ করা থাকে। একটি অধ্যাপনা বা শিক্ষকতা করছে এমন ব্যক্তিদের জন্য, অপরটি শিক্ষার্থীদের জন্য। সফটওয়্যারটির ফ্রি এডিশন চাইলে অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে পাওয়া যায়। মিক্সড মডেল ডাটা বিশ্লেষণ, মাল্টিপল এরর – এসব ক্ষেত্রে এটি একটি বহুল ব্যবহৃত সফটওয়্যার। অন্যান্য সাধারণ সরঞ্জামগুলোও এ সফটওয়্যারে বিদ্যমান। এছাড়া ফাংশন ম্যাট্রিক্স জাতীয় গাণিতিক সমস্যাগুলোও এ সফটওয়্যারের সাহায্যে সমাধান করা যায়।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।