নেভাল আর্কিটেক্ট

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

সাধারণ পদবী: নেভাল আর্কিটেক্ট

বিভাগ: প্রকৌশল

ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম

লেভেল: এন্ট্রি

অভিজ্ঞতা: অধিকাংশ ক্ষেত্রে অন্তত ১/২ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়

কর্মস্থলঃ নৌ বাহিনী/চলাচল কতৃপক্ষ, জাহাজ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান, ডিজাইনিং ফার্ম  

বেতন সীমা: শুরুতে প্রতিষ্ঠানভেদে মাসিক ১৭-২৫ হাজার টাকা

বয়স সীমা: প্রতিষ্ঠানভেদে আলাদা

মূল স্কিল : জাহাজের নকশা তৈরির দক্ষতা, জ্যামিতিক নকশায় পারদর্শী, বলবিদ্যা, প্রয়োজনীয় ডিজাইনিং সফটওয়্যার ব্যবহারের দক্ষতা

বিশেষ স্কিল:  পরিশ্রমী, যোগাযোগের দক্ষতা, বিশ্লেষণী দক্ষতা, সৃজনশীল, দলগতভাবে কাজের দক্ষতা

একজন নেভাল আর্কিটেক্ট কোন ধরনের প্রতিষ্ঠান বা শিল্পে কাজ করেন?

একজন নেভাল আর্কিটেক্ট মূলত সরকারি/বেসরকারি জাহাজ নির্মাণ শিল্পে কাজ করেন। এছাড়া ডিজাইনিং ফার্মের পাশাপাশি নৌ বাহিনী, নৌ চলাচল কতৃপক্ষেও কাজের সুযোগ আছে।

একজন নেভাল আর্কিটেক্ট কী ধরনের কাজ করেন?

  •        জাহাজ ও জাহাজের বিভিন্ন অংশের নকশা তৈরি করেন এবং নকশা থেকে বাস্তবে রুপদানের সম্ভাব্যতা যাচাই করেন
  •        নির্মাণ প্রক্রিয়া, ব্যবহৃত কাঁচামাল নির্বাচনসহ পুরো প্রক্রিয়া পরিকল্পনা করেন
  •        ক্লায়েন্টেদেরকে যে কোন সমস্যার টেকনিক্যাল সমস্যার সমাধান দেন
  •        নতুন কোন জাহাজ নির্মাণের কারিগরি ও আর্থিক ব্যাপারে পরামর্শ দেন
  •        জাহাজসহ অন্যান্য সমুদ্রগামী নৌযানের ফিটনেস পরীক্ষা করেন
  •        বিশ্ববিদ্যালয় ও বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সমুদ্রযানের আধুনিকায়ন নিয়ে গবেষণা করেন
  •        পুরাতন জাহাজের নকশায় কোন ক্রুটি থাকলে তা পরিবর্তন করেন
  •        নব্য নির্মিত জাহাজের সি ট্রায়াল তদারকি করেন

একজন নেভাল আর্কিটেক্টের শিক্ষাগত যোগ্যতা কী?

একজন নেভাল আর্কিটেক্ট হতে চাইলে অবশ্যই নেভাল আর্কিটেক্ট/নেভাল আর্কিটেক্ট অ্যান্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং/ নেভাল আর্কিটেক্ট অ্যান্ড অফশোর ইঞ্জিনিয়ারিং এ বিএসসি/এমএসসি ডিগ্রি থাকতে হবে। ডিপ্লোমা ডিগ্রিধারীরা অধিকাংশ ক্ষেত্রে সহকারী হিসেবে কাজের সুযোগ পান ।

একজন নেভাল আর্কিটেক্টের কী কী দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  •        একজন নেভাল আর্কিটেক্টকে অবশ্যই জাহাজের বাস্তবধর্মী নকশা প্রণয়নে দক্ষ হতে হবে
  •        জাহাজ নির্মাণের প্রক্রিয়া এবং কাঁচামাল সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে
  •        নকশা তৈরির সাথে সাথে গণিত বিশেষত বলবিদ্যায় পারদর্শী হতে হবে
  •        বিভিন্ন টেকনিক্যাল ইনফরমেশন এবং ড্রয়িং বিশ্লেষণে দক্ষ হতে হবে
  •        ডিজাইনিং এর জন্য প্রয়োজনীয় সফটওয়্যার ব্যবহারে পারদর্শী হতে হবে
  •        নকশা প্রণয়নের সাথে সাথে বাস্তবে রূপদানের জন্য প্রয়োজনীয় খরচ সম্পর্কে ওয়াকিবহাল থাকতে হবে
  •        সমগ্র দলের সাথে মিলেমিশে কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে
  •        ভালো যোগাযোগের দক্ষতা থাকতে হবে

কোথায় পড়াশোনা করবেন নেভাল আর্কিটেক্ট হতে চাইলে?

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়(BUET), মিলিটারি ইন্সটিটিউট অফ সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি(MIST), সোনারগাঁ ইউনিভার্সিটিতে নেভাল আর্কিটেক্ট এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং(NAME) এ ব্যাচেলর ডিগ্রি দেওয়া হয়। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটিতে নেভাল আর্কিটেক্ট এন্ড অফশোর ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ানো হয়।

এছাড়া বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে নেভাল আর্কিটেক্ট এন্ড মেরিন ইঞ্জিনিয়ারিং এ মাস্টার্স করবার সুযোগ আছে।

একজন নেভাল আর্কিটেক্টের কাজের ক্ষেত্র ও সুযোগ কেমন?

বাংলাদেশে জাহাজ নির্মাণ শিল্পের প্রসারের সাথে সাথে নেভাল আর্কিটেক্টদের চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। অনেক বাংলাদেশি নেভাল আর্কিটেক্ট সিঙ্গাপুর, কানাডা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রেও কর্মরত আছেবাংলাদেশ নৌ বাহিনী, বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল কতৃপক্ষ(BIWTA), বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল কর্পোরেশন(BIWTC), ডিপার্টমেন্ট অফ শিপিং ছাড়াও পেট্রোবাংলার বিভিন্ন কোম্পানিতে কাজের সুযোগ আছে।

খুলনা শিপইয়ার্ড, নারায়ণগঞ্জ ডকইয়ার্ড এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লিমিটেড, চট্রগ্রাম ড্রাইডক, আনন্দ শিপইয়ার্ড, ওয়েস্টার্ণ মেরিন শিপয়ার্ড লিমিটেড, কর্ণফুলী শিপইয়ার্ড লিমিটেড, থ্রি এঙ্গেল মেরিন লিমিটেড সহ আরো অনেক ছোট ও মাঝারি আকারের জাহাজ নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান ও ডিজাইনিং ফার্মে কাজের সুযোগ আছে।

বাংলাদেশ মেরিন একাডেমী, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কিছু বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতার সুযোগ আছে। এছাড়া একজন নেভাল আর্কিটেক্ট ডিজাইনিং এ দক্ষ হলে ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমেও কাজ পেতে পারেন আপওয়ার্ক, গুরু ডট কমের মত বিভিন্ন ফ্রিল্যান্সিং ওয়ার্ক প্লেসে বিদেশের অনেক কাজ পাওয়া সম্ভব

একজন নেভাল আর্কিটেক্টের মাসিক আয় কেমন?

সরকারি প্রতিষ্ঠানে একজন নেভাল আর্কিটেকচার এর বেতন গ্রেড-৯ অনুযায়ী শুরুতে ২২/২৩ হাজার টাকা হয়ে থাকে। এ গ্রেডে সর্বোচ্চ বেতন ৫৩ হাজার টাকা। পদন্নোতির সাথে সাথে গ্রেড অনুযায়ী বেতন ও বৃদ্ধি পায়। বেসরকারি জাহাজ নির্মাণকারক প্রতিষ্ঠানগুলোতে শুরুতে বেতন কম হয়ে থাকে। প্রতিষ্ঠানভেদে মাসিক ১৭-২৫ হাজার টাকা । তবে চাকুরির মেয়াদ বৃদ্ধির সাথে সাথে দক্ষতা অনুযায়ী বেতনও বৃদ্ধি পায়। এ পেশায় বেতন লাখ টাকার মতো হওয়া সম্ভব। তবে ডিজাইনিং ফার্মে কাজের সুযোগ পেলে ভালো অংকের অর্থ উপার্জন করা যায়। ডিজাইনিং ফার্ম গুলোতে সাধারণত চুক্তি অনুযায়ী কাজ পাওয়া যায়।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন নেভাল আর্কিটেক্টের?

কর্মজীবনের শুরুতে একজন নেভাল আর্কিটেক্ট সহকারী ইঞ্জিনিয়ার/আর্কিটেক্ট হিসেবে কাজ করেন। দক্ষতা ও যোগ্যতার ভিত্তিতে পদোন্নতি পেয়ে সিনিয়র আর্কিটেক্ট/ইঞ্জিনিয়ার, সহকারী ম্যানেজার, সহকারী জেনারেল ম্যানেজার এবং ক্যারিয়ারের শীর্ষে প্রতিষ্ঠানের জেনারেল ম্যানেজার হওয়া সম্ভব। একজন অভিজ্ঞ নেভাল আর্কিটেক্ট দেশের বাইরেও অনেক কাজের সুযোগ পান। এক্ষেত্রে তাকে সৃজনশীল ও নিখুঁতভাবে কাজ করতে হবে।

 

কেন নেবেন ক্যারিয়ার টেস্ট?

  • সরাসরি ইন্টারভিউর কল পেতে
  • সরাসরি চাকরির পরীক্ষা দিতে
  • চাকরি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে
  • চাকরির জন্য দরকারি স্কিল অর্জন করতে
ক্যারিয়ার টেস্টে যান

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।