পার্ট-টাইম চাকরির সুযোগ কোথায় থাকে?

পার্ট-টাইম চাকরির সুযোগ কোথায় থাকে? - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

সময়ের সাথে আমাদের দেশের চাকরির বাজারে বহু পরিবর্তন এসেছে। বিশেষ করে বড় শহরগুলোতে ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসারের কারণে নতুন ধরনের কাজের উদ্ভব ঘটেছে। পার্ট-টাইম চাকরির সুযোগ হলো এমন একটি ধারা। সাধারণত শিক্ষার্থী ও নির্দিষ্ট পেশায় ফুল-টাইম চাকরি না করা মানুষরা নিজেদের উপার্জন বাড়াতে কিছু সময় বরাদ্দ রাখেন এ চাকরিগুলোর জন্য। এমন কিছু কাজ নিয়ে জানুন এবারের লেখায়।

কল সেন্টার অ্যাসিস্ট্যান্ট

বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কাস্টমারদের সহায়তা দিয়ে থাকে কল সেন্টারগুলো। স্বাভাবিকভাবে বড় আকারের জনবল দরকার হয় তাদের। আপনার যদি যোগাযোগের দক্ষতা ও ধৈর্য থাকে, তাহলে পার্ট-টাইম চাকরি হিসাবে কল সেন্টার অ্যাসিস্ট্যান্টের কাজ নিতে পারেন।

সেলস অ্যাসিস্ট্যান্ট

সাধারণত ব্র্যান্ডের শোরুমগুলোতে এমন চাকরির সুযোগ রয়েছে। প্রতিষ্ঠানের প্রোডাক্ট বা সার্ভিসের বিক্রি বাড়ানো এর মূল কাজ। এখানে ভালো করতে কথা দিয়ে কাস্টমারদের প্রভাবিত করায় দক্ষ হতে হবে আপনাকে।

ড্রাইভার ও ডিসপ্যাচ এজেন্ট

Uber আর Pathao-র মতো রাইড শেয়ারিং সার্ভিসগুলোর সুবাদে পার্ট-টাইম ড্রাইভার হিসাবে কাজ করা আগের চেয়ে সহজ হয়েছে। এছাড়া, খাবার আর পার্সেল ডেলিভারিতেও কাজে আসবে আপনার গাড়ি চালানোর দক্ষতা।

ওয়েটার

রেস্টুরেন্ট ও কফি শপগুলোতে খাবার পরিবেশনার কাজ করার জন্য মনোযোগ ও মানসিক চাপ সামলানোর ক্ষমতা থাকা প্রয়োজন। এর কারণ হলো, আপনাকে একই সাথে দুই-তিন টেবিলের কাস্টমারদের স্বাচ্ছন্দ্যের দিকে মনোযোগ দিতে হবে।

টিউটর

একটা সময় পর্যন্ত ভালো উপার্জনের সুপরিচিত একটি ক্ষেত্র ছিলো প্রাইভেট টিউটরিং। বর্তমানে বিভিন্ন কোচিং সেন্টার ও স্কুলে পার্ট-টাইম টিউটর হিসাবে যোগদান করা সম্ভব। আপনার অ্যাকাডেমিক সাফল্য এক্ষেত্রে বড় কাজে দেবে।

ল্যাঙ্গুয়েজ ইন্সট্রাক্টর/ট্রেইনার

ইংরেজি, ফরাসি, জার্মান, জাপানিজ কিংবা চীনা – যে ভাষাতেই আপনি দক্ষ হোন না কেন, সে দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে ভালো আয় করতে পারবেন। ভাষা শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর পাশাপাশি বিভিন্ন কোম্পানিও এ চাকরিতে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দিয়ে থাকে।

ট্যুর গাইড

ঘোরাঘুরি করতে কিংবা নতুন জায়গায় যেতে পছন্দ করলে সেটাকে পার্ট-টাইম চাকরিতে রূপ দিতে পারেন। এক্ষেত্রে বিভিন্ন জায়গার খুঁটিনাটি তথ্য জানা থাকা দরকার।

কপিরাইটার

বিভিন্ন মার্কেটিং ও অ্যাডভার্টাইজিং এজেন্সি বর্তমানে জুনিয়র কপিরাইটার পদগুলোতে শিক্ষার্থীদের নিয়োগ দিয়ে থাকে। এগুলোতে কাজ পেতে আপনাকে আকর্ষণীয় ভাষায় কোন কিছু উপস্থাপন করার কাজে দক্ষ হতে হবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং অ্যাসিস্ট্যান্ট

মূলত সোশ্যাল মিডিয়াগুলোর আধিপত্যের কারণে কোম্পানিগুলো সেখানে বড় আকারে নিজেদের মার্কেটিং করাতে চায়। এর জন্য নিয়মিত কন্টেন্ট ও পোস্ট শেয়ারিং করতে হয় তাদের। ফেসবুক, ইন্সটাগ্রাম বা ইউটিউবের বিভিন্ন ফিচার ব্যবহারে দক্ষ হয়ে থাকলে ও অভিনব উপায়ে প্রচারণা চালানোর দক্ষতা থাকলে আপনিও ডিজিটাল মার্কেটিং অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে পার্ট-টাইম চাকরি করতে পারেন।

পার্ট-টাইম চাকরির সুযোগ খুঁজবেন কোথায়?

চাকরি খোঁজার ওয়েবসাইট ও অন্যান্য কিছু মাধ্যমে এমন কাজের জন্য নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি দেয়া হয়ে থাকে। এগুলোতে নিয়মিত খোঁজ নিতে পারেন।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।