পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার

পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার মূলত তেল,গ্যাস ও অন্যান্য পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থের রিসার্ভ অনুসন্ধান, পরিমাপ ও কূপ খননের কাজ করে থাকেন। এছাড়া কূপ থেকে পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থ উত্তোলনের সকল কারিগরি নকশা ও যন্ত্রাংশের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করে থাকেন।

এক নজরে একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার

সাধারণ পদবী:অ্যাসিস্ট্যান্ট ইঞ্জিনিয়ার/ অপারেশনস ইঞ্জিনিয়ার/ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা
বিভাগ:পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারিং
প্রতিষ্ঠানের ধরন:সরকারি/ বেসরকারি তেল-গ্যাস অনুসন্ধানকারী কোম্পানি, পেট্রোলিয়াম কোম্পানি
ক্যারিয়ারের ধরন:ফুল টাইম
লেভেল:এন্ট্রি
অভিজ্ঞতা সীমা:প্রতিষ্ঠানভেদে ২/৫ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়
সম্ভাব্য বেতনসীমা:শুরুতে প্রতিষ্ঠান ভেদে ২০-৫০ হাজার টাকা। সরকারি প্রতিষ্ঠানে নবম গ্রেড অনুযায়ী ২২-৫৩ হাজার টাকা
সম্ভাব্য বয়সসীমা:সরকারি চাকুরীতে আবেদনের সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩০ বছর । মুক্তিযোদ্ধা কোটাধারী ও প্রতিবন্ধীদের জন্য ৩২ বছর
মূল স্কিল:গণিত, ভূতত্ববিদ্যা, রসায়ন, পদার্থ
বিশেষ স্কিল:বিশ্লেষণী দক্ষতা; IPM, Petrel, Matlab, AutoCAD, Ansis সফটওয়্যার এর ব্যবহার; তাৎক্ষণিকভাবে যুক্তিযুক্ত সিদ্ধান্ত নেবার ক্ষমতা

কোন ধরণের প্রতিষ্ঠানে একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার কাজ করেন?

সরকারি-বেসরকারি তেল-গ্যাস অনুসন্ধানকারী কোম্পানি, জ্বালানী তেল-গ্যাস বিপননকারী কোম্পানি, তেল পরিশোধনাগারসরকারি-বেসরকারি তেল-গ্যাস অনুসন্ধানকারী কোম্পানি, জ্বালানী তেল-গ্যাস বিপননকারী কোম্পানি, তেল পরিশোধনাগার।

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার কী ধরনের কাজ করেন?

  • কম খরচে খনি থেকে পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থ উত্তোলনের জন্য যন্ত্রপাতি ডিজাইন ও পদ্ধতি উদ্ভাবন করা;
  • সাইটের সকল কার্যক্রম তদারকি করা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা;
  • বিভিন্ন রাসায়নিক পদার্থ ও পানির মিশ্রণ থেকে তেল/গ্যাস আলাদা করে উত্তোলনের প্রক্রিয়া নিয়ে কাজ করা;
  • বিভিন্ন স্থান থেকে পেট্রোলিয়াম জাতীয় পদার্থ আহরোণের জন্য বিভিন্ন পরীক্ষা, সঞ্চিত খনিজের পরিমাণ জরিপ এবং উত্তোলন খরচ এর হিসাব করা;
  • তেল ও গ্যাস কূপেও খনন কার্য পরিচালনা করা;

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে কাজ করতে চাইলে পেট্রোলিয়াম ও মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক/স্নাতকোত্তর ডিগ্রী থাকতে হবে। কেমিক্যাল/মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক করে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতকোত্তর ডিগ্রী থাকলেও কাজের সুযোগ পাওয়া যায়।

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারকে বিভিন্ন সফটওয়্যার যেমন IPM, Petrel, Matlab, AutoCAD, Ansis এর কাজে দক্ষ হতে হয়;
  • ব্যবসায়িক দক্ষতা থাকতে হবে, কোন স্থান থেকে পেট্রোলিয়াম উত্তোলন লাভবান হবে কিনা এই ধরনের হিসাব-নিকাশে পটু হতে হবে;
  • বিশ্লেষণী ক্ষমতা থাকতে হবে;
  • দলগতভাবে কাজ করার মানসিকতা এবং দলকে নেতৃত্ব দেবার যোগ্যতা থাকতে হবে;
  • যেকোন নকশা সমগ্র দলকে বর্ননা করে বোঝাবার দক্ষতা থাকতে হবে;
  • দুর্গম ও প্রত্যন্ত অঞ্চলে এমনকি বিরুপ পরিবেশেও কাজ করার মানসিকতা থাকতে হবে;

কোথায় পড়বেন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার?

বাংলাদেশে বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং এ স্নাতক ডিগ্রী দেওয়া হয়

  • মিলিটারি ইন্সটিটিউট অব সায়েন্স এন্ড টেকনোলজি(MIST);
  • শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(SUST);
  • চট্রগ্রাম বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(CUET);
  • যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(JUST)।

এছাড়া বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে(BUET) স্নাতকোত্তর পড়বার সুযোগ আছে।

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের কাজের ক্ষেত্র এবং সুযোগ কেমন?

বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারদের কাজের সুযোগ অনেকটা সংকুচিত। অনেক স্থানে চাকুরীর জন্য মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারদের সাথে প্রতিযোগিতা করতে হয়। সরকারি প্রতিষ্ঠান পেট্রোবাংলা ও এর অধীনস্ত অধিকাংশ কোম্পানিতে কাজের সুযোগ আছে। কোম্পানি গুলো হল-

  • বাংলাদেশ গ্যাস ফিল্ডস কোম্পানী লিমিটেড;
  • সিলেট গ্যাস ফিল্ডস কোম্পানী লিমিটেড;
  • সিলেট গ্যাস ফিল্ডস কোম্পানী লিমিটেড;
  • তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানী লিমিটেড;
  • বাখরাবাদ গ্যাস সিস্টেমস লিমিটেড;
  • জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিষ্ট্রিবিউশন সিস্টেমস লিমিটেড;
  • রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস কোম্পানী লিমিটেড;
  • পশ্চিমাঞ্চলীয় গ্যাস কোম্পানী লিমিটেড;

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ইন্সটিটিউটে গবেষণার সুযোগ আছে। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশনের অধীনস্ত ইস্টার্ন রিফাইনারি, পদ্মা/মেঘনা/যমুনা অয়েল কোম্পানিতে কাজের সুযোগ আছে। এছাড়া বেসরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যে সেভরন, হেলিভারটন, ক্রিস এনার্জি তে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার প্রয়োজন হয়।

একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের মাসিক আয় কেমন?

শুরুতে বেতন ২০-৫০ হাজার টাকা হতে পারে। দক্ষ ও যোগ্য হলে ৪/৫ বছরে বেতন এক লাখ টাকাও হতে পারে। সরকারি প্রতিষ্ঠান গুলোতে সহকারী ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে নবম গ্রেড এর বেতন দিয়ে শুরু হয়। যেমন বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম ইন্সটিটিউট এ বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে বেতন ২২-৫৩ হাজার টাকা। মেঘোনা পেট্রোলিয়াম লিমিটেডে ৬ বছরের অভিজ্ঞ সিনিয়র অপারেশন্স ইঞ্জিনিয়ারের বেতন ৫৭ হাজার টাকা। ১০/১২ বছরের চাকুরীর অভিজ্ঞতা আর দক্ষতা থাকলে বেতন ২/৩ লাখ টাকা হওয়াও সম্ভব।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের?

বাংলাদেশে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারের কাজের সুযোগ কম হলেও বিদ্যমান কাজের সুযোগ সব বড় মাপের প্রতিষ্ঠান গুলোতে। পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে পেট্রোবাংলা, বাপেক্স সহ গ্যাস কোম্পানিগুলোতে উচ্চ পদে কাজের সুযোগ আছে। এছাড়া বিদ্যুৎ ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন অনুসন্ধানমূলক প্রোজেক্টে দক্ষ ও অভিজ্ঞ পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়াররা কাজ করতে পারেন। বহুজাতিক তেল-গ্যাস অনুসন্ধানকারী কোম্পানিগুলোতে অনেক টাকার বেতন ও সুবিধাসহ চাকুরী করা সম্ভব। তবে এসব কোম্পানি চাকুরী অনেকটা অনিশ্চিত এবং সরকারের সাথে কোম্পানির চুক্তির মেয়াদের উপর নির্ভর করে। তবে বিদেশে পেট্রোলিয়াম ইঞ্জিনিয়ারদের অনেক চাহিদা। বিদেশে আরো উচ্চমানের ডিগ্রী নিলে কাজের সুযোগ অনেক প্রসারিত হয়।

Loading

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।