পোর্টফোলিও: কী ও কেন

পোর্টফোলিও: কী ও কেন - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

কাজের পোর্টফোলিও হচ্ছে একজন ব্যক্তির কর্মক্ষমতা, দক্ষতা, জ্ঞান, গুণাবলী এবং কর্মক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় অন্যান্য বিষয়ের চাক্ষুষ উপস্থাপন। এর মাধ্যমে একজন ব্যক্তির প্রতিভা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। অর্থাৎ সহজভাবে বলতে গেলে এ ধরনের পোর্টফোলিও হচ্ছে একজনের কর্মজীবন এর বিভিন্ন ঘটনাবলির সংকলন।

পোর্টফোলিওর প্রকারভেদ

পোর্টফোলিও প্রধানত তিন প্রকার।

১) ওয়ার্কিং পোর্টফোলিও: এ ধরনের পোর্টফলিও  প্রজেক্টগুলো হয় কাজসংশ্লিষ্ট। এতে থাকে কাজের অগ্রগতি অথবা সম্পন্ন কাজের নমুনা। সাধারণভাবে বলতে গেলে এটি হচ্ছে একজন ব্যক্তির কাজসমূহের সংকলন।

২) ডিসপ্লে পোর্টফোলিও: এ ধরনের পোর্টফলিওগুলো সাধারণত শিক্ষাক্ষেত্রে ব্যবহৃত হয়ে থাকে। শিক্ষার্থী এবং কিছু কিছু ক্ষেত্রে শিক্ষকরা তাদের সেরা কাজগুলো এ ধরনের পোর্টফলিও এর মাধ্যমে প্রকাশ করে এবং তা ব্যাখ্যা করে।

৩) অ্যাসেসমেন্ট পোর্টফোলিও: এ ধরনের পোর্টফলিওর মূল কাজ হচ্ছে একজন শিক্ষার্থীর অর্জিত জ্ঞান এর প্রমাণ এর মতো। এ ধরনের পোর্টফলিও এর অংশগুলো নির্ভর করে কারিকুলাম এর উপর।

উল্লিখিত বিভিন্ন পোর্টফোলিওগুলো যদিও একে অপরের থেকে আলাদা, তবুও কর্মক্ষেত্রে এরা একে অন্যের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িত থাকে। অধিকাংশ সময়েই একটি প্রোগ্রাম এর কাজে একাধিক রকমের পোর্টফোলিও ব্যবহার এর প্রয়োজনীয়তা দেখা যায়। কারণ একটি বড় প্রোগ্রামের অধীনে বিভিন্ন ধরনের কাজ থাকে। তাই কোন পোর্টফোলিও প্রজেক্টের সাথে সংশ্লিষ্ট হওয়ার আগে প্রজেক্টটির লক্ষ্য এবং তাতে যোগদানের কারণ সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা রাখতে হবে।

পোর্টফোলিওর ব্যবহার

কর্মক্ষেত্রে বিবিধ কাজে ব্যবহৃত হয়ে থাকে পোর্টফোলিও। বিভিন্ন ধরনের পেশায় ব্যবহার হয় বিভিন্ন রকমের পোর্টফোলিও। চলুন জেনে নেই কর্মক্ষেত্রে পোর্টফোলিওর বিভিন্ন প্রয়োগ সম্পর্কে।

চিত্রকরঃ একজন চিত্রকরের পোর্টফোলিওতে তার বিভিন্ন চিত্রকর্ম থাকে। চিত্রকর্মগুলো হয় এমন, যেন এগুলো তিনি বিভিন্ন চাকুরীর ইন্টারভিউ, সম্মেলন, গ্যালারি এবং অন্যান্য নেটওয়ার্কিং এর সুযোগ- সুবিধাসম্পন্ন জায়গা বা অনুষ্ঠানে নিয়ে যেতে পারেন এবং অন্যদের নিজের কাজ সম্পর্কে অবহিত করতে পারেন। অনেক সময় চিত্রকরদের পোর্টফোলিওকে আর্টফোলিও বলা হয়ে থাকে। আর্টফোলিও বিভিন্ন আকৃতির হতে পারে। আর্টফোলিওগুলোতে সাধারণত চিত্রকরের  দশ থেকে বিশটি সেরা চিত্রকর্ম থাকে। অনেক চিত্রকর বিভিন্ন চাকুরীর উদ্দেশ্যে বিভিন্ন রকমের পোর্টফোলিও ব্যবহার করে থাকেন। যেমন একধরনের পোর্টফোলিও ইলাস্ট্রেশনের জন্য, আবার আরেকধরনের পোর্টফোলিও চিত্র বা ভাস্কর্যের জন্য।

মডেল এবং অভিনেতাঃ এ ধরনের পেশায় ব্যবহৃত পোর্টফোলিওগুলোতে সাধারণত ব্যক্তির ক্যারিয়ারের বিবরণ, তাদের স্থিরচিত্রের সংকলন, তাদের জীবনী এবং তাদের দক্ষতার বিবরণ থাকে। এ ধরনের ট্যলেন্ট পোর্টফোলিওতে ভিডিওর ব্যবহারও ও দেখা যায়।

অ্যানিমেটরঃ অ্যানিমেটররা সাধারণত পোর্টফোলিওর স্থলে অথবা পোর্টফোলিওর সাথে ডেমো রিলস বা ডেমো টেইপস ব্যবহার করে থাকেন চাকুরীদাতাকে তার কর্মক্ষমতা সম্পর্কে অবহিত করতে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানঃ শিক্ষার্থীদের দিয়ে পোর্টফোলিও তৈরি করানোর অনুশীলন করালে শিক্ষকরা তাদের ঘাটতি সম্পর্কে জানতে পারবেন এবং প্রয়োজনমতো তাদের ঘাটতি গুলো পূরণে সহায়তা করতে পারবেন।

সাধারণ কর্মক্ষেত্রঃ যেসব কর্মক্ষেত্রে সাধারণত পোর্টফোলিওর ব্যবহার খুব একটা প্রচলিত নয়, সেসব ক্ষেত্রেও পোর্টফোলিও হতে পারে নিজেকে ব্যতিক্রমী হিসেবে উপস্থাপন করার একটি মাধ্যম। যেমন প্রোগ্রামাররা তাদের রেজিউমে’র সাথে পোর্টফোলিও যোগ করে তাদের সেরা কাজগুলো এবং চ্যালেঞ্জিং প্রজেক্টগুলো সম্পর্কে চাকরিদাতাকে আরো ভালোভাবে জানাতে পারবেন।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।