বিজনেস অ্যানালিস্ট

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

একজন বিজনেস অ্যানালিস্ট একটি প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন ধরনের তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণের মাধ্যমে এর স্বল্পমেয়াদী ও দীর্ঘমেয়াদী উন্নয়ন অর্জনে সহায়তা করে থাকেন।

এক নজরে একজন বিজনেস অ্যানালিস্ট

সাধারণ পদবী: বিজনেস অ্যানালিস্ট, সিস্টেমস অ্যানালিস্ট
বিভাগ: ব্যবসা ও বাণিজ্য
প্রতিষ্ঠানের ধরন: সাধারণত প্রাইভেট ফার্ম/কোম্পানি
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল-টাইম, চুক্তিভিত্তিক, ফ্রিল্যান্সিং
লেভেল: মিড
অভিজ্ঞতা সীমা: ৩ – ৫ বছর
মিড লেভেলে সম্ভাব্য গড় বেতন: ৳৪০,০০০ – ৳৫০,০০০
সম্ভাব্য বয়স সীমা: ২৮-৩৫ বছর
মূল স্কিল: ব্যবসায়িক ধারণা, বিশ্লেষণী ক্ষমতা, ব্যবসায়িক সমাধান দিতে পারা, ডাটা বিশ্লেষণ
বিশেষ স্কিল: যোগাযোগের দক্ষতা, প্রজেক্ট ব্যবস্থাপনা

একজন বিজনেস অ্যানালিস্ট কোথায় কাজ করেন?

এ পদটি সাধারণত বড় কোম্পানিগুলোতে পাওয়া যায়। ব্যবসায়িক বিভিন্ন প্রজেক্টের রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের জন্য বিজনেস অ্যানালিস্ট নিয়োগ করা হয়।

একজন বিজনেস অ্যানালিস্ট কী ধরনের কাজ করেন?

  • প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পণ্য বা সার্ভিসের উপর তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করা।
  • সংগৃহীত তথ্য-উপাত্তকে বিশ্লেষণ করা।
  • তথ্য-উপাত্তের বিশ্লেষণ করার পর প্রাপ্ত ফলাফলকে কীভাবে পণ্য বা সার্ভিসের উন্নয়নে কাজ লাগানো যায়, তা চিহ্নিত করা।
  • পণ্য বা সার্ভিস সংক্রান্ত তথ্য-উপাত্তের বিশ্লেষণের ভিত্তিতে প্রতিবেদন তৈরি করা।
  • ব্যবসায়িক প্রসারের ক্ষেত্রে সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানকে জানানো।
  • প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন পর্যায়ের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা।
  • ব্যবসায়িক তথ্য-উপাত্তের মান উন্নয়নের উপর গবেষণা করা।

একজন বিজনেস অ্যানালিস্টের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ অধিকাংশ কোম্পানিতে এ পদের জন্য ব্যবসা সংক্রান্ত বিষয়ে ব্যাচেলর ডিগ্রি চাওয়া হয়। তবে কিছু কোম্পানিতে মাস্টার্স ডিগ্রির প্রয়োজন হতে পারে।

বয়সঃ প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষে বয়সের সীমা থাকতে পারে।

অভিজ্ঞতাঃ এ পেশায় অভিজ্ঞদের প্রাধান্য দেয়া হয়। সাধারণত ব্যবসায়িক ডাটা বিশ্লেষণের উপর ৩-৫ বছরের অভিজ্ঞতা কাজে আসে।

একজন বিজনেস অ্যানালিস্টের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • ব্যবসায়িক সুযোগ ও ঝুঁকি নির্ণয় করার ক্ষমতা;
  • খুঁটিনাটি বিষয় বিশ্লেষণ করার দক্ষতা;
  • ব্যবসায়িক উন্নয়নের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্তের স্ট্যান্ডার্ড তৈরি করতে পারা;
  • বাংলা ও ইংরেজি – দুই ভাষাতেই ভালো যোগাযোগ করতে পারা;
  • আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ভালো সিদ্ধান্ত নেবার দক্ষতা।

এ পেশায় ডাটা বিশ্লেষণের সফটওয়্যার ব্যবহারে দক্ষতা থাকা জরুরি।

একজন বিজনেস অ্যানালিস্টের মাসিক আয় কেমন?

মাসিক আয় কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ। গড়ে ৪০ হাজার টাকা বেতন দিয়ে চাকরি শুরু হতে পারে।

ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্ষেত্রে প্রজেক্টের আকারের ভিত্তিতে লক্ষাধিক টাকা আয় করা সম্ভব। তবে এর জন্য আপনার পেশাদার পোর্টফোলিও থাকা প্রয়োজন।

একজন বিজনেস অ্যানালিস্টের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

সাধারণত বিজনেস ডেভেলপমেন্ট বিভাগের এন্ট্রি লেভেলে আপনার কাজ শুরু হবে। পরে অ্যানালিস্ট হিসাবে উন্নীত হবেন। এ ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পণ্য বা সার্ভিসের ডাটা ব্যবস্থাপনার জন্য নিযুক্ত করা হতে পারে আপনাকে।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।