বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার

বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার একটি প্রতিষ্ঠানের উন্নয়নে বড় ভূমিকা পালন করে থাকেন। সাধারণত প্রতিষ্ঠানের পণ্য/সার্ভিস বিক্রি ও কাস্টমারদের সাথে দীর্ঘস্থায়ী ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে তোলার মাধ্যমে এ কাজ করতে হবে আপনাকে।

এক নজরে একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার

সাধারণ পদবী: বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার, বিজনেস ডেভেলপমেন্ট এক্সিকিউটিভ
বিভাগ: ব্যবসা ও বাণিজ্য
প্রতিষ্ঠানের ধরন: সাধারণত প্রাইভেট ফার্ম/কোম্পানি
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল-টাইম
লেভেল: এন্ট্রি
অভিজ্ঞতা সীমা: ০ – ২ বছর
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য গড় বেতন: ৳২০,০০০
সম্ভাব্য বয়স সীমা: ২৫-৩০ বছর
মূল স্কিল: ব্যবসায়িক ধারণা, ব্যবসায়িক সমাধান দিতে পারা
বিশেষ স্কিল: যোগাযোগের দক্ষতা, সহযোগিতার সম্পর্ক তৈরি করতে পারা, প্রজেক্ট ব্যবস্থাপনা

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার কোথায় কাজ করেন?

এ পদটি সাধারণত নতুন কোম্পানিগুলোতে পাওয়া যায়। এছাড়া বড় প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন কোন বাজারে ব্যবসা সম্প্রসারণের সময় বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার নিয়োগ দিয়ে থাকে।

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসার কী ধরনের কাজ করেন?

  • ব্যবসার প্রসারের জন্য নতুন ধারণা নিয়ে আসা।
  • প্রতিদ্বন্দ্বী প্রতিষ্ঠানগুলোর পণ্য বা সেবাগুলো যাচাই করা।
  • বাজারে কেমন পণ্য বা সার্ভিসের চাহিদা রয়েছে, সে সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা।
  • ব্যবসার জন্য প্রয়োজনীয় মেট্রিক ঠিক করা।
  • সেলস ও মার্কেটিং দলের সাথে কাজের সমন্বয় ঘটানো।
  • প্রতিষ্ঠানের কাস্টমারদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা।
  • নতুন কাস্টমারদের সাথে ব্যবসায়িক সম্পর্ক তৈরি করা।
  • ব্যবসার অগ্রগতি সম্পর্কে নিয়মিত প্রতিবেদন তৈরি করা।

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসারের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ অধিকাংশ কোম্পানিতে এ পদের জন্য ব্যাচেলর ডিগ্রি চাওয়া হয়। তবে কিছু কোম্পানিতে মাস্টার্স ডিগ্রির প্রয়োজন হতে পারে।

যেহেতু প্রতিষ্ঠানের ব্যবসায়িক উন্নতি নিয়ে আপনি কাজ করবেন, সেহেতু ব্যবসা সংক্রান্ত ডিগ্রি থাকলে তা কাজে আসবে।

বয়সঃ প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষে বয়সের সীমা থাকতে পারে। যেমন, ইয়ন গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজের ক্ষেত্রে ২৫-৩০ বছর হতে হবে আপনাকে।

অভিজ্ঞতাঃ এ পেশায় অভিজ্ঞদের প্রাধান্য দেয়া হয়। সাধারণত ১-২ বছরের ব্যবসা সংক্রান্ত অভিজ্ঞতা কাজে আসে।

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসারের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • নতুন ব্যবসায়িক সুযোগ নির্ণয় করার ক্ষমতা;
  • খুঁটিনাটি বিষয় বিশ্লেষণ করার দক্ষতা;
  • বাংলা ও ইংরেজি – দুই ভাষাতেই ভালো যোগাযোগ করতে পারা;
  • কাস্টমারদের সাথে ভালো ব্যবসায়িক সম্পর্ক বজায় রাখার ক্ষমতা;
  • যে কারো সাথে সহযোগিতায় যেতে পারা;
  • আলাপ-আলোচনার মাধ্যমে ভালো সিদ্ধান্ত নেবার দক্ষতা।

এ পেশায় টেকনিক্যাল দক্ষতা আবশ্যক নয়। তবে ব্যবসা সংক্রান্ত বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশন জানা দরকারি। যেমন, মাইক্রোসফট এক্সেল কিংবা কাস্টমার রিলেশনশিপ ম্যানেজমেন্ট (CRM) সফটওয়্যার।

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসারের মাসিক আয় কেমন?

মাসিক আয় কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ। গড়ে ২০ হাজার টাকা বেতন দিয়ে চাকরি শুরু হতে পারে। অবশ্য বহু প্রতিষ্ঠানে পণ্য বা সার্ভিস বিক্রিতে আপনার ভূমিকার ভিত্তিতে লভ্যাংশ পাবার সুযোগ রয়েছে।

একজন বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অফিসারের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

সাধারণত সেলস বা বিজনেস ডেভেলপমেন্ট বিভাগের এন্ট্রি লেভেলে আপনার কাজ শুরু হবে। পরে সিনিয়র পদে উন্নীত হবেন। এ ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট পণ্য বা সার্ভিসের ব্যবস্থাপনার জন্য নিযুক্ত করা হতে পারে আপনাকে।

আপনার ব্যবসায়িক জ্ঞান ও দক্ষতার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক উন্নয়নে যদি বড় ভূমিকা রাখতে পারেন, সে ক্ষেত্রে খুব তাড়াতাড়ি সিনিয়র পদ পাবেন। সম্ভাব্য সবচেয়ে উঁচু পদ পেতে পারেন আপনার বিভাগের পরিচালক হিসাবে।

তথ্যসূত্র

১. আস্ক টেলিকম লিমিটেড, বিজ্ঞপ্তির তারিখঃ ৫ মার্চ ২০১৮, বিডিজবস ডট কম।

২. বিপজি লিমিটেড, বিজ্ঞপ্তির তারিখঃ ১৩ মার্চ ২০১৮, বিডিজবস ডট কম।

৩. ইয়ন গ্রুপ অফ ইন্ডাস্ট্রিজ, বিজ্ঞপ্তির তারিখঃ ১৩ মার্চ ২০১৮, বিডিজবস ডট কম।

৪. ফাহিম আনোয়ার, কি অ্যাকাউন্ট ম্যানেজার, পার্পলবট ডিজিটাল।

কেন নেবেন ক্যারিয়ার টেস্ট?

  • সরাসরি ইন্টারভিউর কল পেতে
  • সরাসরি চাকরির পরীক্ষা দিতে
  • চাকরি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে
  • চাকরির জন্য দরকারি স্কিল অর্জন করতে
ক্যারিয়ার টেস্টে যান

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।