বিসিএস ইকনমিক ক্যাডার: সহকারী প্রধান

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস(BCS) এর ইকনমিক ক্যাডারগণ দেশের উন্নয়নের লক্ষ্যে বিভিন্ন স্বল্প ও দীর্ঘ মেয়াদী উন্নয়ন পরিকল্পনার অর্থনৈতিক সম্ভাব্যতা যাচাই বাছাই এবং অর্থনৈতিক পরিকল্পনা করে থাকেন

সাধারণ পদবী: সহকারী প্রধান/অ্যাসিস্ট্যান্ট চীফ

বিভাগ: অর্থ ও পরিকল্পনা

কর্মস্থলঃ অর্থ ও পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগ/কমিটি

ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম

লেভেল: এন্ট্রি

অভিজ্ঞতা: পূর্ব অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। বিসিএস (ইকনমিক) ক্যাডার হিসেবে উত্তীর্ণ হলে বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ৬ মাসের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এছাড়া ইকনমিক ক্যাডারদের ন্যাশনাল একাডেমী ফর প্ল্যানিং এন্ড ডেভেলপমেন্ট(NADP) এ বিভাগীয় প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়

বেতন সীমা: জাতীয় বেতন স্কেলের নবম গ্রেড অনুযায়ী মূল বেতন ২২ হাজার টাকা। কর্মস্থল অনুযায়ী বাড়ি ভাড়া ও অন্যান্য ভাতা মিলিয়ে শুরুতে মাসিক বেতন ৩২-৩৭ হাজার টাকা।

বয়স সীমা: বিসিএস সার্কুলার যে মাসে দেওয়া হবে সে মাসের প্রথম দিন একজন প্রার্থীর বয়স ২১-৩০ এর মধ্যে হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধা সনদধারী ব্যক্তিদের সন্তান, পৌত্র-পৌত্রী ও স্বাস্থ্য ক্যাডারদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর। আদিবাসী প্রার্থীদের জন্য সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর  

মূল স্কিল: জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অর্থনীতি সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে, পরিকল্পনায় দক্ষ হতে হবে

বিশেষ স্কিল:  হিসাব-নিকাশে দক্ষ হতে হবে, সূক্ষ পর্যবেক্ষন এবং সুদূরপ্রসারী হতে হবে

একজন সহকারী প্রধান কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন?

একজন সহকারী প্রধান পরিকল্পনা বিভাগের বিভিন্ন বিভাগ/উপবিভাগ/কমিটি এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগে কাজ করেন

একজন সহকারী প্রধান কী ধরনের কাজ করেন?

বিসিএস ইকনমিক ক্যাডারদের প্রধান কাজ অর্থ মন্ত্রণালয় এবং পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগ, উপবিভাগ এবং কমিটিতে কাজ করা। বাংলাদেশ স্বাধীন হবার পর যে কটি পঞ্চবার্ষিক অর্থনৈতিক পরিকল্পনা হয়েছে তা ইকনমিক ক্যাডারদের কাজ। বিসিএস ইকনমিক ক্যাডাররা বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের অধীনে বাস্তবায়িত হওয়া উন্নয়ন পরিকল্পনা গুলোর অর্থনৈতিক সম্ভাব্যতা যাচাই করেন। এছাড়া জাতীয় অর্থনৈতিক কাউন্সিল(NEC), একনেক সহ জাতীয় পর্যায়ের বিভিন্ন অর্থনৈতিক কমিটিতে সকল পরিকল্পনা বিসিএস ইকনমিক ক্যাডাররা করে থাকেন। তবে শুরুতে সহকারী প্রধান হিসেবে তেমন গুরু দায়িত্ব পাওয়া যায়না। একজন সহকারী প্রধানের কাজ মূলত উর্ধ্বতন কর্মকর্তাকে সাহায্য করা। এর পাশাপাশি বিভিন্ন নথিপত্র পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা, বিভিন্ন রিপোর্ট তৈরি করে থাকেন একজন সহকারী প্রধান

একজন ইকনমিক ক্যাডারের শিক্ষাগত যোগ্যতা কী?

উচ্চমাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষা পাশের পর কোন স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে ৪ বছর মেয়াদী যেকোন বিষয়ে ডিগ্রী থাকলেই বিসিএস ইকনমিক ক্যাডার পদের জন্য যোগ্য বিবেচিত হবেতবে শিক্ষাজীবনের যে কোন পর্যায়ে ( মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক) একটির বেশি তৃতীয় বিভাগ থাকলে অযোগ্য বিবেচিত হবে 

একজন ইকনমিক ক্যাডারের কী কী দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  •         অর্থনৈতিক পরিকল্পনা করার দক্ষতা থাকতে হবে
  •         বিভিন্ন দেশের অর্থনৈতিক ব্যবস্থা সম্বন্ধে জ্ঞান থাকতে হবে
  •         হিসাব-নিকাশে দক্ষ হতে হবে
  •         আইন, পরিসংখ্যান, ফিন্যান্সে দক্ষতার পাশাপাশি দেশের রাজনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে
  •         দীর্ঘমেয়াদি, সুদূরপ্রসারি ও কার্যকরি পরিকল্পনা করবার দক্ষতা থাকতে হবে
  •         শতভাগ নির্ভুলভাবে কাজের দক্ষতা থাকতে হবে

একজন ইকনমিক ক্যাডারের কাজের ক্ষেত্র ও সুযোগ কেমন?

৩৬তম, ৩৭তম ও ৩৮ তম বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তিতে যথাক্রমে ৪জন, ৬জন ও ৬ জনের জন্য ইকনমিক ক্যাডার হিসেবে সহকারী প্রধান পদের জন্য বিজ্ঞাপন দেওয়া হয়েছে এ ক্যাডারদের কাজের বিস্তার কম হওয়াতে খুব কম নিয়োগ দেওয়া হয় এ ক্যাডারের কর্মকর্তাগণ পরিকল্পনা কমিশনের বিভিন্ন বিভাগ, উপবিভাগ, জাতীয় অর্থনৈতিক কাউন্সিল(NEC), একনেক(ECNEC) এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের বিভিন্ন বিভাগে কাজ করেন ইকনমিক ক্যাডার হিসেবে ঢাকার বাইরে কাজের সুযোগ খুবই কম ইকনমিক ক্যাডারগণ দক্ষ ও যোগ্য হলে প্রেষণে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থায় (যেমন, ওয়ার্ল্ড ব্যাংক, ইউএনডিপি, এডিবি, আইডিবি) কাজের সুযোগ পান।

একজন সহকারী প্রধানের মাসিক আয় কেমন?

কর্মজীবনের শুরুতে একজন সহকারী প্রধান গ্রেড ৯ অনুযায়ী ৩২-৩৭ হাজার টাকা বেতন পান। এ ক্যাডারে ক্যারিয়ারের শীর্ষে একজন বিভাগীয় প্রধান/ডিভিশনাল চীফ গ্রেড-২ অনুযায়ী বেতন পান।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন সহকারী প্রধানের?

ইকনমিক ক্যাডারে শুরুতে সহকারী প্রধান হিসেবে কর্মজীবন শুরুর পর পদোন্নতি পেয়ে যথাক্রমে ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রধান, উপ প্রধান, যুগ্ম প্রধান এবং ক্যারিয়ারের শীর্ষে বিভাগীয় প্রধান হবার সুযোগ পান। বিভাগীয় প্রধান একটি গ্রেড-২ এর পদ এবং অতিরিক্ত সচিবের সমমানের। এ ক্যাডারে কাজের পরিধি কম বলে পদোন্নতি হতে অন্য ক্যাডার থেকে তুলনামূলক বেশি সময় লাগে।

 

Loading

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।