বেসরকারি স্কুল শিক্ষক

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

বাংলাদেশ অধিক জনসংখ্যার দেশ হওয়ায় শিক্ষা বিস্তারের লক্ষ্যে সরকারের পাশাপাশি বেসরকারী খাত ও কাজ করে যাচ্ছে বিভিন্ন সংস্থার পাশাপাশি ব্যক্তিগত উদ্যোগেই বেসরকারী খাতে সবচেয়ে বেশি স্কুল গড়ে উঠেছে উচ্চশিক্ষা সমাপ্তির পর এ সকল স্কুলে শিক্ষকতা তরুণ-তরুণীদের জন্য একটি আকর্ষণীয় পেশা

সাধারণ পদবীঃ  শিক্ষক/সহকারি শিক্ষক/জুনিয়র শিক্ষক

বিভাগঃ  শিক্ষকতা

প্রতিষ্ঠানের ধরনঃ বেসরকারী  

ক্যারিয়ারের ধরনঃ ফুল টাইম/পার্ট টাইম

লেভেলঃ এন্ট্রি/মিড

অভিজ্ঞতা সীমাঃ  প্রতিষ্ঠানভেদে আলাদা। তবে যে কোন প্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম ২ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয় 

সম্ভাব্য বেতন সীমাঃ  শুরুতে প্রতিষ্ঠান ও স্থানভেদে মাসিক বেতন ১০-৩০ হাজার টাকা হতে পারে।

সম্ভাব্য বয়স সীমাঃ অভিজ্ঞ তরুণ-তরুণীদের প্রাধান্য দেওয়া হয়

মূল স্কিলঃ পাঠ্যসূচী ও শিক্ষা ব্যবস্থা সম্পর্কে জ্ঞান, শ্রেণিকক্ষে পাঠদানে সক্ষমতা, শিক্ষার্থী বান্ধব আচরণ

বিশেষ স্কিলঃ  ধৈর্য্যশীল, সময়ানুবর্তী, শিক্ষার্থীদের মন ও মনন বোঝার দক্ষতা

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষক কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন?

শিক্ষক হিসেবে যে কোন ধরনের বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমের বিভিন্ন ধরনের স্কুল যেমন প্রি-স্কুল, কে জি স্কুল, জুনিয়র স্কুল, সিনিয়র স্কুল বা হাই স্কুলে কাজের সুযোগ আছে বেসরকারী স্কুল সমূহ ব্যক্তিগত উদ্যোগ, এনজিও, দাতা সংস্থা বা কোন প্রতিষ্ঠানের দ্বারা গড়ে উঠতে পারে

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষক কী ধরনের কাজ করেন?

  •        পেশাদারী এবং নৈতিক দায়িত্ববোধ থেকে একজন শ্রেণি শিক্ষক মূল্যায়নের ক্ষেত্রে সব সময় সকল শিক্ষার্থীর জন্য একই রকম ধারাবাহিকতা বজায় রাখবেন
  •        কোন শিক্ষার্থী ক্লাসে পাঠ না বুঝলে ক্লাসের পর বিশেষভাবে তাকে বুঝিয়ে দিবেন
  •        শিক্ষার্থী উপস্থিতির তালিকা তৈরি করবেন
  •        যথাযথ উপকরণ ব্যবহার ও পাঠ পরিকল্পনা করে অংশগ্রহন মুলক ক্লাস নিবেন
  •        শিক্ষার্থীর প্রতি একজন শ্রেণি শিক্ষকের আচরণ বা দৃষ্টিভঙ্গি সবসময় হবে ইতিবাচক । তিনি নেতিবাচকতা সম্পূর্ণভাবে পরিহার করবেন
  •        নিজস্ব চিন্তা-চেতনা,ব্যক্তিত্ব,মেধা যোগ্যতা, মননশীলতা আর আধুনিক প্রযুক্তির প্রয়োগে শ্রেণির কার্যক্রম পরিচালনা করবেন
  •        শিক্ষার্থীদেরকে স্বাস্থ্য, রাজনীতি, ইতিহাস, বিজ্ঞান ও অন্যান্য সামাজিক বিষয়ে সচেতন করে তুলবেন
  •        শিক্ষার্থীদের মূল্যবোধ গঠনে সাহায্য করা ও গণতান্ত্রিক মনোভাব গড়ে তুলবেন
  •        শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহনে বিভিন্ন জাতীয় দিবস উদযাপন করবেন এবং দিবসের তাৎপর্য সহজ ভাষায় বুঝিয়ে বলবেন
  •        পাঠ্যপুস্তকের পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের পারিপার্শ্বিক বিভিন্ন বিষয়ে বাস্তব জ্ঞান দিবেন
  •        শ্রেণিতে শিক্ষাদানের পাশাপাশি শ্রেণির বাইরে বিভিন্ন কার্যক্রমে শিক্ষার্থীদের সাথে থাকবেন
  •         

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষকের শিক্ষাগত যোগ্যতা কী?

স্কুলে শিক্ষকতার জন্য অবশ্যই অনার্স/মাস্টার্স ডিগ্রি থাকতে হবে সাধারণত যে বিষয়ের শিক্ষক প্রয়োজন সে বিষয়েই উচ্চতর ডিগ্রি চাওয়া হয় অনেক প্রতিষ্ঠানে ব্যাচেলর অফ এডুকেশন/ মাস্টার্স অফ এডুকেশন ডিগ্রিধারীদের প্রাধান্য দেওয়া হয়

ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে শিক্ষকতার জন্য ইংরেজি মাধ্যমে ব্যাকগ্রাউন্ড থাকা বাঞ্ছনীয় মানসম্মত ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলে শিক্ষকতা করতে চাইলে অনার্স/মাস্টার্সে ভালো ফলাফল থাকতে হবে 

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষকের কী কী দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  •        একজন শিক্ষক যে বিষয়টিতে শ্রেণিতে পাঠদান করবেন সে বিষয়ে গভীর জ্ঞান থাকতে হবে
  •        একজন শিক্ষককে শিক্ষার্থীর আচরণ দেখে তার মনের ভাষা বুঝতে হবে
  •        একজন শিক্ষককে সময়ানুবর্তি হতে হবে
  •        ধৈর্যশীলতা একজন শিক্ষকের অন্যতম গুণ
  •        শ্রেণিকক্ষে শিক্ষার্থীদের মনোযোগ আকর্ষণে সমর্থ হতে হবে
  •        শিক্ষার্থীদের কাছে শ্রেণির পাঠ আকর্ষণীয় করে তুলতে হবে
  •        ইংরেজি মাধ্যমে শিক্ষকতা করতে চাইলে অবশ্যই ইংরেজি ভাষা ব্যবহারে দক্ষ হতে হবে
  •        পাঠ্য বইয়ের জ্ঞান বাস্তবে প্রয়োগ ও ব্যবহারিকে দক্ষ হতে হবে

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষকের কাজের ক্ষেত্র ও সুযোগ কেমন?

বাংলাদেশে সচেতনতা বৃদ্ধির সাথে সাথে শিক্ষিত জনগোষ্ঠির সংখ্যা বৃদ্ধি পাচ্ছে এখন নিম্নবিত্ত পরিবারের অনেক সন্তানেরাও পড়াশোনার সুযোগ পাচ্ছে গ্রামাঞ্চলের শিক্ষা ব্যবস্থা সরকারি/আধা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রিক হলেও শহরের উচ্চবিত্ত থেকে নিম্নবিত্ত পরিবারের সন্তানেরা বেসরকারী স্কুল কেন্দ্রিক শিক্ষা লাভ করছে ঢাকা সহ বড় শহর গুলোয় প্রতিষ্ঠা পেয়েছে অসংখ্য মানসম্মত ইংরেজি ও বাংলা মাধ্যমের স্কুল এছাড়া শহরের আবাসিক এলাকা গুলোতে গড়ে উঠেছে অসংখ্য কে জি স্কুল এবং প্রি স্কুল প্রত্যন্ত অঞ্চলে শিক্ষার বিস্তারের সাথে সাথে সেসব অঞ্চলে বেসরকারী উদ্যোগে গড়ে উঠছে একাধিক জুনিয়র স্কুল/হাই স্কুল শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্যমতে বাংলাদেশে বেসরকারী হাই স্কুলের সংখ্যা ১৫৪৮৯ টি বস্তিবাসী এবং নিম্নবিত্তদের মাঝে শিক্ষা বিস্তারের জন্য ব্র্যাক, আশা, প্রশিকা, জাগো ফাউন্ডেশনসহ একাধিক এনজিও কাজ করে যাচ্ছে। কাজেই এখন বেসরকারী স্কুলে শিক্ষকতার সুযোগ অনেক বেশি।

একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষকের মাসিক আয় কেমন?

বেসরকারী স্কুলে বেতন স্কুলের আকার, মান এবং স্থানের উপর অনেকাংশে নির্ভর করে ঢাকা কিংবা বড় শহরে মানসম্মত বাংলা কিংবা ইংরেজি মাধ্যমে স্কুলে কোন রকম অভিজ্ঞতা না থাকলে বেতন সাধারণত ২০-৩০ হাজার টাকা হয়ে থাকে তবে এসব প্রতিষ্ঠান স্বনামধন্য হওয়াতে দক্ষ হলে বেতন দ্রুত বৃদ্ধি পায় সাধারণত ৫/৬ বছরেই বেতন দ্বিগুণ হয়ে যায় ছোট শহর বা বপড় শহরের ছোট স্কুল গুলোতে বেতন সাধারণত কম হয়ে থাকে প্রতিষ্ঠানভেদে শুরুতে বেতন ১০-১৫ হাজার টাকা হয়ে থাকে এসব প্রতিষ্ঠানে বেতন অনেকাংশে কাজের চাপের উপর নির্ভর করে অনেক প্রতিষ্ঠানে অতিরিক্ত ক্লাস/দায়িত্বের জন্য অতিরিক্ত টাকা পাওয়া যায়

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন বেসরকারী স্কুল শিক্ষকের?

ক্যারিয়ারের শুরুতে জুনিয়র টিচার/সহকারি শিক্ষক হিসেবে শিক্ষকতা শুরু করে একমাত্র অভিজ্ঞতা অর্জন করেই একজন সিনিয়র শিক্ষক হতে পারেন। শিক্ষকতার পাশাপাশি ব্যবস্থাপনায় দক্ষ হলে স্কুলের কোন কমিটির প্রধান, ভাইস প্রিন্সিপাল এমনকি ক্যারিয়ারের শীর্ষে প্রিন্সিপাল হওয়া যায়। তবে অধিকাংশ ব্যক্তিগত উদ্যোগে গড়ে উঠা প্রতিষ্ঠানগুলোতে স্কুল প্রতিষ্ঠাতার স্নেহভাজন ব্যক্তিকেই স্কুল প্রধানের দায়িত্ব দেওয়া হয়

অনেক সময় কর্মজীবনের শুরুতে ছোট-মাঝারি মানের স্কুলে শিক্ষকতা করে অভিজ্ঞ ও দক্ষ হলে পরবর্তিতে বড় মাপের মানসম্মত স্কুলে শিক্ষকতার সুযোগ পাওয়া যায়।

 

কেন নেবেন ক্যারিয়ার টেস্ট?

  • সরাসরি ইন্টারভিউর কল পেতে
  • সরাসরি চাকরির পরীক্ষা দিতে
  • চাকরি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে
  • চাকরির জন্য দরকারি স্কিল অর্জন করতে
ক্যারিয়ার টেস্টে যান

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।