মেডিকেল টেকনোলজিস্ট

মেডিকেল টেকনোলজিস্ট: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

রাজধানীসহ সারা দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলা শহরে সরকারি হাসপাতালের পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতাল বা ক্লিনিক আর ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরি রয়েছে। আরো রয়েছে প্রায় ১৮ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিক। এগুলোতে রোগীদের রোগ নির্ণয়ে চিকিৎসককে সাহায্য করার কাজ করে থাকেন একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট বা প্যারামেডিক।

এক নজরে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট

সাধারণ পদবী: হেলথ/মেডিকেল টেকনোলজিস্ট
বিভাগ: স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
প্রতিষ্ঠানের ধরন: সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্য কেন্দ্র, রোগ ও চিকিৎসা গবেষণা কেন্দ্র, এনজিও
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল-টাইম
লেভেল: এন্ট্রি
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য অভিজ্ঞতা সীমা: ১ – ২ বছর
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য বেতনসীমা: ৳১০,০০০ – ৳১৫,০০০
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য বয়সসীমা: ২০ – ২৫ বছর
মূল স্কিল: মানবদেহ নিয়ে সাধারণ ধারণা, সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ের দক্ষতা, ল্যাবরেটরি প্রযুক্তি ব্যবহারে দক্ষতা, গভীর মনোযোগ
বিশেষ স্কিল: ল্যাবরেটরি ব্যবস্থাপনা, বিশ্লেষণী ক্ষমতা, যোগাযোগের দক্ষতা

কোন ধরণের প্রতিষ্ঠানে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কাজ করেন?

  • সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল
  • সরকারি-বেসরকারি ক্লিনিক ও স্বাস্থ্যকেন্দ্র
  • ডায়াগনস্টিকস ল্যাব
  • রোগ নির্ণয় গবেষণা প্রতিষ্ঠান
  • আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ফরেনসিক বিভাগ

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্ট কী ধরনের কাজ করেন?

  • প্যাথলজিস্টের ক্ষেত্রে রোগীর মল, মূত্র, রক্ত ও কাশি সংগ্রহ করা ও পরীক্ষা করা;
  • রেডিওথেরাপি টেকনোলজিস্টের ক্ষেত্রে ক্যান্সার রোগ নিরাময়ে রেডিওথেরাপি প্রদান করা;
  • রেডিওলজি ও ইমেজিং টেকনোলজিস্টের ক্ষেত্রে এক্স-রে, এমআরআই ও সিটি স্ক্যান করা;
  • ডেন্টাল টেকনোলজিস্টের ক্ষেত্রে দাঁত তোলা, বাঁধানো, স্কেলিং, ও ফিলিংয়ের কাজে ডেন্টিস্টকে সাহায্য করা;
  • পরীক্ষার ভিত্তিতে প্রতিবেদন তৈরি করা;
  • রোগীর স্বাস্থ্য পরীক্ষার রেকর্ড রাখা;
  • ল্যাবরেটরি সরঞ্জামের রক্ষণাবেক্ষণ করা;
  • ক্ষেত্রবিশেষে রোগ নির্ণয়ের পদ্ধতি নিয়ে গবেষণা করা;
  • নতুন কর্মীদের প্রশিক্ষণ দেয়া।

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ এ পেশায় আসতে হলে ন্যূনতম শিক্ষাগত যোগ্যতা হিসাবে মেডিকেল টেকনোলজির ডিপ্লোমা কোর্স করা থাকতে হবে আপনার। তবে কিছু ক্ষেত্রে বিএসসি ডিগ্রি চাওয়া হয়।

অভিজ্ঞতাঃ অবশ্যই কোন প্রতিষ্ঠানে আগে ইন্টার্নশিপের অভিজ্ঞতা নিতে হবে।

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • মেডিকেল টেকনোলজি সম্পর্কিত জ্ঞান;
  • রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসায় ব্যবহৃত যন্ত্রপাতির সঠিক ব্যবহার জানা;
  • রোগীর সমস্যার কথা মনোযোগ দিয়ে শোনা;
  • সঠিকভাবে রোগ নির্ণয়ের দক্ষতা;
  • গভীর মনোযোগ সহকারে কাজ করার মানসিকতা।

কোথায় পড়বেন মেডিকেল টেকনোলজি?

সারাদেশে কারিগরি শিক্ষাবোর্ডের অধীন ২৩৮টি মেডিকেল টেকনোলজি ইন্সটিটিউট গড়ে ওঠে। এসব প্রতিষ্ঠান থেকে ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল টেকনোলজি ডিগ্রী দেওয়া হয়। এই কোর্সে যে কোন বিভাগ থেকে ২.৫০ জিপিএ নিয়ে এসএসসি পাশ করলেই ভর্তি হওয়া যায়।

বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২৩৮টি মেডিকেল টেকনোলজি ইন্সটিটিউটে মেডিকেল টেকনোলজি বিষয়ক বিভিন্ন ডিপ্লোমা কোর্স রয়েছে। যেমনঃ

  • ল্যাবরেটরি মেডিকেল টেকনোলজি বা প্যাথলজি
  • রেডিওথেরাপি টেকনোলজি
  • রেডিওলজি ও ইমেজিং টেকনোলজি
  • ডেন্টাল টেকনোলজি
  • ফিজিওথেরাপি
  • ইন্টিগ্রেটেড মেডিকেল টেকনোলজি

এসব কোর্সে যে কোন বিভাগ থেকে ২.৫০ জিপিএ নিয়ে এসএসসি পাশ করলেই ভর্তি হওয়া যায়। এর বাইরে কারিগরি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট ও প্যারামেডিকদের জন্য কোর্স আছে।

৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ডিগ্রি পাশের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনস্ত বিভিন্ন ইন্সটিটিউট থেকে বিএসসি ইন ল্যাব মেডিসিন, বিএসসি ইন ডেন্টাল, বিএসসি ইন ফিজিওথেরাপি আর বিএসসি ইন ল্যাবরেটরি মেডিসিন (প্যাথলজি) বিষয়ে পড়াশোনা করতে পারবেন।

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের কাজের ক্ষেত্র এবং সুযোগ কেমন?

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার নিয়ম অনুযায়ী জনসংখ্যার অনুপাতে বাংলাদেশে প্রায় ২ লক্ষ মেডিকেল টেকনোলজিস্ট প্রয়োজন। ২০১৩ সালের হিসাব মতে আমাদের দেশে মেডিকেল টেকনোলজিস্টের সংখ্যা ১৪/১৫ হাজার, যা এখন কিছুটা বেড়েছে।

ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার স্বাস্থ্যসেবা পূরণের লক্ষ্যে দেশের জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে এখন চিকিৎসা কেন্দ্র গড়ে উঠেছে। এছাড়া রোগ নির্ণয়ের জন্য গড়ে উঠেছে হাজার হাজার ডায়াগনস্টিক সেন্টার। এগুলোতে প্রচুর সংখ্যক মেডিকেল টেকনোলজিস্টের চাহিদা রয়েছে। কোর্স সমাপ্ত করে ইন্টার্নশিপ করলে অসংখ্য কাজের সুযোগ পাবেন আপনি।

একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের মাসিক আয় কেমন?

শুরুতে বেতন ৳১০,০০০ – ৳১৫,০০০ হয়ে থাকে। অভিজ্ঞতা ও দক্ষতা বৃদ্ধির সাথে সাথে তা ৳৪০,০০০ – ৳৫০,০০০ হয় (সূত্রঃ দৈনিক ইত্তেফাক, ১৩ মে, ২০১৩)।

সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ভালো বেতনে কাজের সুযোগ আছে। এছাড়া, এনজিওগুলোতেও ভালো বেতন উপার্জন করা সম্ভব। যেমন, সেভ দ্য চিলড্রেনে ২ বছরের একজন অভিজ্ঞ প্যারামেডিক ৳১৮,০০০ – ৳২০,০০০ পেয়ে থাকেন।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন মেডিকেল টেকনোলজিস্টের?

মেডিকেল টেকনোলজিস্ট হিসেবে কর্মক্ষেত্রে বেকারত্বের হার খুবই কম। শুরুতে ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোয় কাজের সুযোগ অনেক। অভিজ্ঞতা থাকলে বেসরকারি বড় বড় হাসপাতালে ভালো বেতন ও সুযোগ-সুবিধাসম্পন্ন কাজ পাওয়া যায়।

মেডিকেল টেকনোলজিতে বিএসসি ডিগ্রি থাকলে কর্মক্ষেত্রে আরো সুবিধা পাওয়া যায়। এছাড়া ইংরেজি ভাষায় দক্ষ হলে বিদেশে কাজের সুযোগ পাবেন। বিশেষ করে মধ্য প্রাচ্য ও কানাডায় বাংলাদেশি হেলথ টেকনোলজিস্টদের চাহিদা অনেক।

কেন নেবেন ক্যারিয়ার টেস্ট?

  • সরাসরি ইন্টারভিউর কল পেতে
  • সরাসরি চাকরির পরীক্ষা দিতে
  • চাকরি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে
  • চাকরির জন্য দরকারি স্কিল অর্জন করতে
ক্যারিয়ার টেস্টে যান

2 thoughts on “মেডিকেল টেকনোলজিস্ট

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।