ল্যাবরেটরি ম্যানেজার: গার্মেন্টস শিল্প

ল্যাবরেটরি ম্যানেজার - গার্মেন্টস শিল্প: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

ল্যাবরেটরি ম্যানেজার পদটি সাধারণত গার্মেন্টস অথবা টেক্সটাইল শিল্পে দেখা যায়। এ পদে নিযুক্ত ব্যক্তিদের ল্যাবরেটরির সার্বিক দেখাশোনা করতে হয়।

এক নজরে গার্মেন্টস শিল্পের একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজার

সাধারণ পদবী: ল্যাবরেটরি ম্যানেজার
বিভাগ: গার্মেন্টস ও টেক্সটাইল
প্রতিষ্ঠানের ধরন: প্রাইভেট ফার্ম/কোম্পানি
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম
লেভেল: মিড লেভেল
মিড লেভেলে সম্ভাব্য অভিজ্ঞতা সীমা: ৫ – ৮ বছর
মিড লেভেলে সম্ভাব্য গড় বেতন: ৳৫০,০০০ – ৳৮০,০০০
মিড লেভেলে সম্ভাব্য বয়স: ৩৫ – ৪০ বছর
মূল স্কিল: কাপড়ের মান ও রঙের ব্যবহার সম্পর্কিত জ্ঞান, ল্যাবরেটরি ব্যবস্থাপনা
বিশেষ স্কিল:যোগাযোগের দক্ষতা, সম্পদ ব্যবস্থাপনা

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজার কোথায় কাজ করেন?

  • টেক্সটাইল ও গার্মেন্টস কারখানা;
  • বায়িং হাউজ;
  • ট্রেডিং হাউজ।

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজার কী ধরনের কাজ করেন?

  • ল্যাব টিমকে নির্দেশনা দেয়া;
  • টেস্টিং ল্যাবের দায়িত্ব পালন করা;
  • প্রোডাকশন টিমের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রাখা;
  • ক্লায়েন্টের পছন্দ অনুযায়ী কাপড় নির্ধারণ;
  • কাপড় ও রঙের মান যাচাই করা;
  • ল্যাবরেটরির যন্ত্রপাতির সঠিক ব্যবহার ও রক্ষণাবেক্ষণ নিশ্চিত করা;
  • প্রয়োজনে কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা।

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারকে সাধারণত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ন্যূনতম ব্যাচেলর অথবা ডিগ্রি পাশ হতে হবে। কিছু ক্ষেত্রে মাস্টার্স ডিগ্রির প্রয়োজন হয়।

ভাষাগত যোগ্যতাঃ প্রয়োজনীয় ভাষা (চাইনিজ, জাপানিজ অথবা অন্য যে কোন ভাষা) ভালোমতো লিখতে, পড়তে, বুঝতে ও বলতে জানতে হবে। এক্ষেত্রে সার্টিফিকেট কোর্স করা থাকলে অগ্রাধিকার পাবেন।

বয়সঃ সাধারণত ৩৫ থেকে ৪০ বছর।

অভিজ্ঞতাঃ এ পেশায় আসতে হলে অভিজ্ঞতার কোন বিকল্প নেই। কাজের ধরন ও প্রতিষ্ঠানভেদে ৩ – ১২ বছরের অভিজ্ঞতা চাওয়া হয়।

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • কাপড় ও পোশাক তৈরির সামগ্রিক প্রক্রিয়া সম্পর্কে ভালো ধারণা;
  • বিভিন্ন ধরনের ফ্যাব্রিক সম্পর্কে টেকনিক্যাল জ্ঞান;
  • রঙের ব্যবহার সম্পর্কে টেকনিক্যাল জ্ঞান;
  • কাপড় ও পোশাক তৈরির ব্যবসায়িক দিক সংক্রান্ত ধারণা;
  • আন্তর্জাতিক স্ট্যান্ডার্ড নিয়ে পরিষ্কার ধারণা;
  • বিদেশী প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সে দেশের ভাষাজ্ঞান;
  • বিশ্লেষণী ক্ষমতা, যা খুঁটিনাটি বিষয়গুলো পর্যবেক্ষণে সাহায্য করতে পারে;
  • কারখানায় কাজ করার মানসিকতা থাকা;
  • সমস্যা সমাধানের দক্ষতা, যা কারখানার জটিল কাজ সামলানোর ক্ষেত্রে জরুরি;
  • যোগাযোগের দক্ষতা, যা দর কষাকষি বা নেতিবাচক পরিস্থিতি মোকাবেলায় কাজে দেবে।

উল্লেখ্য যে, এ পেশায় আসতে হলে ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর স্ট্যান্ডার্ডাইজেশন (ISO), বৃটিশ স্ট্যান্ডার্ড ইউরোপিয়ান নর্ম (BSEN), আমেরিকান অ্যাসোসিয়েশন অফ টেক্সটাইল কেমিস্ট অ্যান্ড কালারিস্টস (AATCC) আর আমেরিকান সোসাইটি ফর টেস্টিং ম্যাটেরিয়ালসের (ASTM) মতো বিভিন্ন স্ট্যান্ডার্ড নিয়ে ধারণা থাকা জরুরি।

কোথায় পড়বেন ল্যাবরেটরি ম্যানেজমেন্ট?

এ পদে সাধারণত টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার বা রসায়নে স্নাতক ডিগ্রিধারী ব্যক্তিদের প্রাধান্য দেয়া হয়। বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানে এ বিষয়ে পড়াশোনার সুযোগ রয়েছেঃ

  • বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় (BUTEX);
  • প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রাসায়নিক প্রকৌশল;
  • বিভিন্ন বিশ্ববদ্যালয়ের রসায়ন বিভাগ।

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারের মাসিক আয় কেমন?

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারের মাসিক বেতন সাধারণত ৳৫০,০০০ থেকে শুরু হয়। তবে এক্ষেত্রে বিষয়টি কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ।

একজন ল্যাবরেটরি ম্যানেজারের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

ল্যাবরেটরি ম্যানেজার একটি মিড লেভেলের পদ। সাধারণত এন্ট্রি লেভেলে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ার বা অ্যাসিস্ট্যান্ট ল্যাবরেটরি ম্যানেজার হিসাবে আপনার ক্যারিয়ার শুরু হবে। ৫-১০ বছরের মধ্যে ল্যাবরেটরি ম্যানেজার পদে উন্নীত হবেন। ক্যারিয়ারের পরবর্তী পর্যায়ে প্ল্যান্ট ম্যানেজার বা আরো বড় পদে কাজ করার সুযোগ পেতে পারেন।

Loading

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।