হোটেল ম্যানেজার

হোটেল ম্যানেজার: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

হোটেল ম্যানেজার পদটি সাধারণত ছোট হোটেল বা আবাসিক রেস্ট হাউজের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হয়। পাঁচ তারকা হোটেল কিংবা আকারে বড় হোটেলগুলোর জন্য ম্যানেজার পদটি বেশ কিছু ভাগে ভাগ করা থাকে। এক্ষেত্রে গেস্ট রিলেশন ম্যানেজার, ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার-এর মত বেশ কয়েকটি পদ থাকে। এই পদে ভালো কাজের উদাহরণ দিতে পারলে পরবর্তীতে পদোন্নতির মাধ্যমে জেনারেল ম্যানেজার বা হোটেল ব্যবস্থাপক নামক পদে নিয়োগ পাওয়া যায়। তবে বড় হোটেলগুলোর ক্ষেত্রে এই পদটিতে নিয়োগ পেতে অভিজ্ঞতাসম্পন্ন হওয়ার পাশাপাশি বেশ সমৃদ্ধ কাজের ইতিহাস থাকা জরুরী।

এক নজরে একজন হোটেল ম্যানেজার

সাধারণ পদবী: হোটেল ম্যানেজার (DBA)
বিভাগ: হোটেল ও পর্যটন
প্রতিষ্ঠানের ধরন:সরকারি, প্রাইভেট ফার্ম/কোম্পানি
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম, চুক্তিভিত্তিক
লেভেল: মিড
অভিজ্ঞতা সীমা: ৫ – ৮ বছর
বেতনসীমা: ৳৩০,০০০ – ৳৫০,০০০
সম্ভাব্য বয়সসীমা: ২৬ – ৩৫ বছর
মূল স্কিল: ব্যবস্থাপনা, হোটেল ব্যবসা সম্পর্কিত পরিষ্কার ধারণা
বিশেষ স্কিল: সমস্যা সমাধানের দক্ষতা, প্রজেক্ট ব্যবস্থাপনা, সময় ব্যবস্থাপনা, যোগাযোগের দক্ষতা

একজন হোটেল ম্যানেজার কোথায় কাজ করেন?

একজন হোটেল ম্যানেজারের কাজ বিভিন্ন আবাসিক হোটেল বা রেস্ট হাউজের মধ্যে সীমাবদ্ধ। তবে এক্ষেত্রে আবাসিক হোটেলের ধরনের উপরে হোটেল ম্যানেজারের কাজ নির্ভর করে। বাংলাদেশে তিন তারকা থেকে পাঁচ তারকা হোটেলগুলোর ক্ষেত্রে ম্যানেজার বা ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব বেশ কয়েকটি ভাগে ভাগ করা থাকে। আবার সাধারণ আবাসিক হোটেলের ক্ষেত্রে হয়তো হোটেলের সমগ্র ব্যবস্থাপনার দায়িত্বই অর্পিত থাকে একজন হোটেল ম্যানেজারের উপর। সাধারণত একজন হোটেল ম্যানেজার তিন ধরনের হোটেলে কাজ করতে পারেন –

  • তিন তারকা থেকে পাঁচ তারকা হোটেল। যেখানে ব্যবস্থাপনার কাজ সাধারণত চার বা পাঁচ ভাগে ভাগ করা থাকে। এক্ষেত্রে একজন জেনারেল ম্যানেজারের অধীনে গেস্ট রিলেশন ম্যানেজার, ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার, হাউজ কিপিং ম্যানেজার, রিজার্ভেশন ম্যানেজারসহ আরও দুই-তিনজন ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে থাকতে পারেন। অনেক ক্ষেত্রে জেনারেল ম্যানেজার সরাসরি একজন সহকারী জেনারেল ম্যানেজারের কাজ তত্ত্বাবধান করেন এবং সহকারী জেনারেল ম্যানেজার প্রশাসনিক ব্যবস্থাপনার দেখভাল করেন;
  • মাঝারি ধরনের হোটেল। এখানে ব্যবস্থাপনার জন্য সাধারণত দুই-তিনজন ব্যক্তিকে ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োগ দেওয়া হয়। সাধারণত প্রশাসনিক তত্ত্বাবধানের পাশাপাশি গেস্ট রিলেশন এবং ফ্রন্ট ডেস্ক ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা করে ব্যক্তিদের ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়;
  • ছোট হোটেল। এখানে সমগ্র হোটেলের ব্যবস্থাপনার জন্য সাধারণত একজন ব্যক্তিকে নিয়োগ দেওয়া হয়। তবে কিছু ক্ষেত্রে হোটেল ম্যানেজারকে সাহায্য করার জন্য তার অধীনে একজন সহকারী নিয়োগ দেওয়া হয়।

একজন হোটেল ম্যানেজার কী ধরনের কাজ করেন?

  • গেস্ট রিলেশন ম্যানেজারের ক্ষেত্রে অতিথি আপ্যায়ন, অতিথিদের সেবাজনিত ব্যাপারের দিকে লক্ষ করতে হয়। হোটেল সার্ভিস বা সেবার ব্যাপারে যাতে অতিথিদের কোন অভিযোগ না থাকে এবং সেক্ষেত্রে যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া একজন গেস্ট রিলেশন ম্যানেজারের দায়িত্ব। অতিথিদের সাথে সম্পর্ক ব্যবস্থাপনা এবং অতিথিদের কোন প্রয়োজন মেটানোর দায়িত্ব একজন গেস্ট রিলেশন ম্যানেজারের উপর ন্যস্ত থাকে;
  • ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজারের দায়িত্ব রুমের চাবির হিসেব রাখা থেকে শুরু করে একজন অতিথি কয়দিন থাকবেন, রুম বুকিং, অতিথিদের কোন প্রশ্ন বা জিজ্ঞাসা থাকলে তার উত্তর দেওয়া পর্যন্ত সব। এক্ষেত্রে একজন অতিথির যে কোন প্রয়োজনীয় তথ্য জানার জন্য অতিথিরা ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করবেন। ফ্রন্ট ডেস্ক এর আরেকটি কাজ হচ্ছে রিসিপশনিস্ট এর কাজ করা। কিছু ক্ষেত্রে পেমেন্ট নেওয়ার কাজ ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজারের করা লাগে, আবার কিছু ক্ষেত্রে তা গেস্ট রিলেশন ম্যানেজারের হাতে ন্যস্ত করা হয়। তবে সাধারণত একজন জেনারেল ম্যানেজার পেমেন্ট বা টাকা জমার ব্যাপারটি দেখভাল করেন;
  • হাউজ কিপিং ম্যানেজারের কাজ হোটেল রুম ক্লিনিং, রুম সার্ভিস সহ পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা ও হোটেল প্রাঙ্গণ ব্যবস্থাপনা করা;
  • একজন ছোট হোটেলের ম্যানেজারের হাতে রুম সার্ভিস থেকে শুরু করে গেস্ট রিলেশন, ফ্রন্ট ডেস্ক, হাউজ কিপিং, পেমেন্ট গ্রহণসহ সবধরনের কাজ করা লাগে।

একজন হোটেল ম্যানেজার কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ যে কোন বিষয়ে যে কোন বিশ্ববিদ্যালয় হতে ব্যাচেলর ডিগ্রীপ্রাপ্ত যে কেউ নিয়োগের জন্য আবেদন করতে পারেন। তবে ট্যুরিজম ও হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিষয়ে মাস্টার্স অথবা ব্যাচেলর ডিগ্রীপ্রাপ্ত কেউ নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রাধান্য পেয়ে থাকেন।

বয়সঃ এক্ষেত্রে বয়সসীমা সাধারণত ২৫ থেকে ৩২ বছরের মধ্যে হয়ে থাকে। তবে হোটেল ম্যানেজার বা জেনারেল ম্যানেজার পদে নিয়োগ পেতে হলে ৫ থেকে ৯ বছরের অভিজ্ঞতার পাশাপাশি বয়সসীমা ৩০ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে নির্ধারণ করে দেওয়া থাকতে পারে।

অভিজ্ঞতাঃ হোটেল ম্যানেজারের নিয়োগের ক্ষেত্রে যোগ্যতার ব্যাপারটি একদমই কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ। অভিজ্ঞতার বিষয়টি সাধারণত বড় হোটেল ছাড়া খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে দেখা হয় না। তবে ছোট হোটেলে একমাত্র হোটেল ম্যানেজার হিসেবে কর্মরত হতে হলে সেক্ষেত্রে অভিজ্ঞতার বিষয়টি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বড় হোটেলগুলোর ক্ষেত্রে গেস্ট রিলেশন ম্যানেজার সাধারণত ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজারের অধীনে কাজ করেন। হোটেল ম্যানেজার হিসেবে প্রথম পদে নিয়োগের ক্ষেত্রে সাধারণত ২ বছরের অভিজ্ঞতা প্রয়োজন হয়।

একজন হোটেল ম্যানেজারের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • বন্ধুত্বপূর্ণ আচরণ জানা জরুরী। অতিথিদের কারো সাথে খারাপ ব্যবহার করায় হোটেলের ব্যবস্থাপনার সুনামক্ষুণ্ন হয়। এক্ষেত্রে শান্ত ও ভদ্র আচরণসম্পন্ন ব্যক্তিত্ব হওয়াও জরুরী;
  • বাজেট ও অর্থসংক্রান্ত বিষয় জানা জরুরী। এক্ষেত্রে হিসাবরক্ষণের ব্যাপারে সম্যক ধারণা থাকতে হবে;
  • ইংরেজী ভালোভাবে বলতে পারতে হবে। বিদেশি অতিথি কেউ আসলে তার সাথে কথা বলতে যাতে কোন সমস্যা না হয় এবং এই কারণে অতিথি যাতে কোন সমস্যার সম্মুখীন না হন এই ব্যাপারটি নজরে রাখা বেশ গুরুত্বপূর্ণ;
  • অধঃস্তন কর্মচারী ও কর্মকর্তাদের ব্যবস্থাপনা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করতে হবে যাতে অন্তঃকলহের সৃষ্টি না হয় হোটেলের অভ্যন্তরে;
  • উপস্থিত বুদ্ধি থাকতে হবে এবং হোটেলে হঠাৎ উদ্ভূত সমস্যার ক্ষেত্রে উপস্থিত বুদ্ধির পরিচয় দিয়ে যথাযথ সমাধানের ব্যবস্থা করা আবশ্যক।

একজন হোটেল ম্যানেজারের মাসিক আয় কেমন?

কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ। হোটেলের আকার ও ধরনের উপর ভিত্তি করে মাসিক সম্মানী প্রদান করা হয় এক্ষেত্রে। পাঁচ তারকা হোটেলগুলোর ক্ষেত্রে একজন হোটেল ম্যানেজারকে সাধারণত মাসিক ৫৭ হাজার টাকা থেকে ৬২ হাজার টাকা প্রদান করা হয়ে থাকে। নিয়োগ, কাজ ও প্রতিষ্ঠানের উপর ভিত্তি করে মাসিক সম্মানীর ভিন্নতা এই ইন্ডাস্ট্রিতে খুবই সাধারণ একটি বিষয়।

একজন হোটেল ম্যানেজারের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

নিয়োগের পরে একজন হোটেল ম্যানেজারের ক্যারিয়ারের অগ্রগতির ধাপগুলো কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ হয়। যেমন আপনি যদি গেস্ট রিলেশন অফিসার হিসেবে কাজ শুরু করেন সেক্ষেত্রে আপনার পদোন্নতির পরে আপনি ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার হিসেবে কাজ করবেন। আবার ফ্রন্ট ডেস্ক ম্যানেজার থেকে পদোন্নতির মাধ্যমে সহকারী জেনারেল ম্যানেজার বা সহকারী ব্যবস্থাপক হিসেবে কাজ করতে পারেন। এক্ষেত্রে জেনারেল ম্যানেজার বা ব্যবস্থাপক সাধারণত সর্বোচ্চ পদ হয়ে থাকে।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।