ট্রেজারার

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

সাধারণ পদবী: ট্রেজারার

বিভাগ: অ্যাকাউন্টস ম্যানেজমেন্ট

প্রতিষ্ঠানের ধরন: সরকারি, প্রাইভেট ফার্ম/কোম্পানি,অন্যান্য

ক্যারিয়ারের ধরন:ফুল টাইম

লেভেল:মিড

অভিজ্ঞতা সীমা: কাজ ও প্রতিষ্ঠানসাপেক্ষ

সম্ভাব্য বেতন সীমা: ৳২২৫০০ – কাজ, প্রতিষ্ঠান ও অভিজ্ঞতাসাপেক্ষ

সম্ভাব্য বয়স সীমা: কাজসাপেক্ষ

মূল স্কিল:ব্যবস্থাপক, অপারেশন স্টাফ, ব্যাংকার এবং বিনিয়োগকারীদের সাথে যোগাযোগের জন্য শক্তিশালী যোগাযোগ দক্ষতা

বিশেষ স্কিল: সংখ্যাসূচক তথ্য নিয়ে কাজ করার ক্ষমতা, বিশ্লেষণ এবং সমস্যা সমাধানের দক্ষতা

একজন ট্রেজারার কী ধরনের সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন?

  •         ব্যাংক ও বীমা কর্পোরেশনে
  •         সরকারী বেসরকারী প্রতিষ্ঠান
  •         বহুজাতিক সমবায় সমিতি
  •         ঋণ সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান
  •         এনজিও
  •         আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলো

একজন ট্রেজারার কী ধরনের কাজ করে থাকেন?

  •         পুঁজি বাজার এবং তহবিল নিয়ন্ত্রণ।
  •         নগদ এবং নগদীকরণ ব্যবস্থাপনা।
  •         কর্পোরেট আর্থিক ব্যবস্থাপনা
  •         ট্রেজারি অপারেশন এবং নিয়ন্ত্রণ।
  •         প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যানের কাছে সকল কর্মসূচী সম্পর্কে রিপোর্ট করা এবং প্রতিষ্ঠানের সকল সদস্যদের সাথে সবসময় যোগাযোগ রাখা।
  •         বোর্ড সভা, কমিটি এবং বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) জন্য এজেন্ডা এবং কাগজপত্র সংগঠিত করা এবং প্রস্তুত করা।
  •         বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে চুক্তি, তথ্য সংগ্রহ এবং রিপোর্ট তৈরী , সিদ্ধান্তগুলি নিশ্চিত করে প্রাসঙ্গিক সংস্থার অংশীদারদের সাথে যোগাযোগ করা।
  •         প্রতিষ্ঠানের সকল অর্থনৈতিক কর্মকান্ড মনিটরিং করা।
  •         তাত্ত্বিক ও অংশগ্রহনমূলক প্রক্রিয়ার মাধ্যমে সমস্যা চিহ্নিত করা ও সমাধানের চেষ্টা করা
  •         নতুন কর্মী নিয়োগ ও প্রশিক্ষণ প্রদান করা।

একজন ট্রেজারারের কী ধরনের যোগ্যতা থাকে?

একজন ট্রেজারার হতে চাইলে নূন্যতম স্নাতক পাশ হতে হয়। যেকোনো বিষয়ে স্নাতক ডিগ্রীধারীরা এ পেশায় আসতে পারেন। তবে সিএ, অ্যাকাউন্টিং এবং ফাইন্যান্স, ব্যবসা, ব্যবস্থাপনা এবং আইন শাস্ত্রের স্নাতকরা কিছু কিছু প্রতিষ্ঠানে অগ্রাধিকার পান।

একজন ট্রেজারারের কী ধরনের জ্ঞান ও দক্ষতা থাকা দরকার?

  •         ব্যবস্থাপক, অপারেশন স্টাফ এবং ব্যাংকার এবং বিনিয়োগকারীদের সাথে যোগাযোগের জন্য শক্তিশালী আন্তঃব্যক্তিগত এবং যোগাযোগের দক্ষতা
  •         বিশ্লেষণাত্মক দক্ষতা এবং আইটি বিষয়ে দক্ষতা
  •         কূটনৈতিক পদ্ধতিতে কোম্পানির উচ্চ প্রোফাইল কর্মীদের এবং বোর্ড সদস্যদের সমর্থন প্রদানের যোগ্যতা।
  •         সকল প্রকার গোপনীয় তথ্য পরিচালনা করার সময় অখণ্ডতা এবং বিচক্ষণতা
  •         দলগতভাবে কাজ করার মানসিকতা
  •         সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী ক্ষমতা
  •         চাপে ও ঝুঁকি নিয়ে কাজ করার আগ্রহ

কোথায় শিখবেন ট্রেজারারের কাজ?

বাংলাদেশের সরকার স্বীকৃত যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সিএ, ব্যবসায় প্রশাসন, ব্যবস্থাপনা, মার্কেটিং, অর্থনীতি,ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং, এমবিএ ইত্যাদি বিষয়ে পড়ে এ পেশায় আসতে পারেন। এগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলঃ

  •         University of Dhaka
  •         University of Chittagong
  •         University of Rajshahi etc.

একজন ট্রেজারারের মাসিক আয় কত?

প্রতিষ্ঠান ভেদে একজন ট্রেজারারের মাসিক আয় ভিন্নতর হতে পারে। তবে সাধারনত ২০০০০ থেকে শুরু হয়।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন ট্রেজারারের?

একজন ট্রেজারারের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি।সকল প্রকার সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠান, এনজিও, ব্যাংক বীমা কর্পোরেশনে, ব্যাংকগুলোতে, বহুজাতিক সমবায় সমিতি এবং আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থাগুলোতে ট্রেজারার পদে কাজের সুযোগ রয়েছে।

 

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।