বাংলাদেশ পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং সেন্টার কী ও কেন?

বাংলাদেশ পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং সেন্টার কী ও কেন? - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

বাংলাদেশ পাবলিক অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ট্রেনিং সেন্টার (বিপিএটিসি) প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৮৪ সালে। এটি রাজধানী ঢাকা থেকে ২৮ কিলোমিটার উত্তরে সাভারে অবস্থিত। ১৯৮৪ সালে ২৬ নং অর্ডিন্যান্স এর আওতায় একটি সমন্বিত জাতীয় স্বায়ত্তশাসিত প্রশিক্ষণকেন্দ্র হিসেবে বিপিএটিসি প্রতিষ্ঠিত হয়। বিপিএটিসির প্রধান কর্মকর্তা হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন সরকারের একজন সচিব। প্রধান কর্মকর্তা ডিরেক্টর পদবী দ্বারা পরিচিত এই প্রতিষ্ঠানে। তার অধীনস্থ মোট বিভাগ রয়েছে ৫টি।

বিপিএটিসি প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্য

বিপিএটিসি প্রতিষ্ঠা লক্ষ্য হলো জাতীয় পর্যায়ে লোকপ্রসাশনের ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়নের জন্য সরকারি ও বেসরকারি কর্মকর্তাদের প্রয়োজনীয় জ্ঞান দান। এবং কলাকৌশল শিক্ষাদানের মাধ্যমে তাদের দক্ষতার উন্নয়ন সাধন করা।

কাদের প্রশিক্ষণ প্রদান করা হয় বিপিএটিসিতে?

বাংলাদেশের সিভিল সার্ভিসের নবনিযুক্ত ক্যাডারদের মৌলিক প্রশিক্ষণ এখানে দেওয়া হয়।এছাড়া মধ্যম স্তরের ও সিনিয়র সরকারি কর্মকর্তাদের চাকুরিকালীন প্রশিক্ষণ,পাবলিক করপোরেশন, স্থানীয় কর্তৃপক্ষ ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তাদের প্রশিক্ষণও এখানে প্রদান করা হয়।

বিপিএটিসির কার্যক্রম

সরকারের ক্যাডার ও নন- ক্যাডার সকল কর্মকর্তাকে বিপিএটিসি প্রশিক্ষণ প্রদান করে। এছাড়া প্রশাসন ও উন্নয়ন বিষয়ক সমস্যা সমাধানে সরকারকে পরামর্শদান, লোকপ্রশাসন, ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়ন বিষয়ে গবেষণা পরিচালনা, প্রশাসন ও উন্নয়ন বিষয়ক বই, সাময়িকী ও প্রতিবেদন প্রকাশ, গ্রন্থাগার ও পাঠকক্ষ প্রতিষ্ঠা ও পরিচালনা এবং অর্ডিন্যান্সে বর্ণিত অন্যান্য বিষয় বাস্তবায়ন করা এসবই বিপিএটিসির কার্যক্রমের অন্তর্ভূক্ত।

এখানে প্রতি বছর প্রশিক্ষণ কোর্স,কর্মশালা ও সেমিনারের আয়োজন করা হয়।চাহিদা অনুসারে এবং সময়ের প্রয়োজনে পূর্বে নির্ধারিত পরিকল্পনার পরিবর্তনও আনা হয় এখানে।

প্রশিক্ষণ কর্মসূচির ধরন

বিপিএটিসির প্রশিক্ষণ কর্মসূচি দুই ভাগে বিভক্ত।
•    মৌলিক কোর্স
•    স্বল্পমেয়াদি বিশেষ কোর্স

মৌলিক কোর্স

মৌলিক কোর্সের মেয়াদ ১০-১৬ সপ্তাহ। এই কোর্সের বিষয়গুলো তত্ত্বগত ও পেশাসংক্রান্ত। প্রশাসন ও উন্নয়ন বিষয়ক উচ্চতর প্রশিক্ষণ কোর্স  ও সিনিয়র স্টাফ কোর্স, বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কোর্স, ইত্যাদি মৌলিক কোর্সের আওতায় পরিচালিত হয়।

স্বল্পমেয়াদি বিশেষ কোর্স

এ কোর্সের মেয়াদ ১-৪ সপ্তাহ। বিষয়ভিত্তিক দক্ষতা উন্নয়নের জন্য স্বল্পমেয়াদী বিশেষ কোর্স করানো হয়।

সেমিনার ও কর্মশালা

প্রশিক্ষণ কোর্সের মধ্যে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ের সেমিনার আয়োজন করা হয়।এছাড়া কোর্সে অংশগ্রহণকারী প্রত্যেককে সেমিনার পেপার তৈরী করতে হয়।

গবেষণায় উৎসাহ প্রদান

সকল প্রশিক্ষক কিংবা অনুষদ সদস্যদেরকে সবসময় লোকপ্রশাসন, ব্যবস্থাপনা ও উন্নয়নমূলক অর্থনীতি বিষয়ে গবেষণা করতে উৎসাহ প্রদান করা হয়। গবেষণার জন্য অর্থ থেকে শুরু করে সকল আনুষঙ্গিক সাহায্য করা হয় বিপিএটিসি থেকে। এসকল গবেষণা ও জরিপের ফলাফল থেকেই পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় পাঠ্যক্রম, শিক্ষা উপকরণ, শিক্ষণীয় বিষয়াদি ও প্রশিক্ষণ পদ্ধতি নির্ধারণ করা হয়।

অন্যান্য লোকপ্রশাসন কেন্দ্র

ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী ও খুলনা বিভাগের চারটি লোক প্রশাসন কেন্দ্র বিপিএটিসির প্রশাসনিক তত্ত্বাবধানে পরিচালিত হয়। প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির কর্মকর্তাসহ সহায়ক কর্মকর্তাদের জন্য প্রশিক্ষণ কোর্সের ব্যবস্থা করা, মাঝেমধ্যে উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জন্য আঞ্চলিক কেন্দ্রসমূহে প্রশিক্ষণ কোর্স, বিভিন্ন সেমিনার ও কর্মশালার ব্যবস্থা করা- প্রভৃতি এ কেন্দ্রগুলোর প্রধান দায়িত্ব। প্রতিবছর আঞ্চলিক কেন্দ্রগুলোর জন্য বার্ষিক প্রশিক্ষণ পরিকল্পনা প্রণয়ন করা এবং অধিভুক্ত প্রতিষ্ঠানসমূহে তা প্রেরণ করাও এ কেন্দ্রগুলোর কাজ।

দেশের লোকপ্রশাসনক্ষেত্রে যোগ্য কর্মকর্তা গড়ে তুলতে অপরিসীম ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে বিপিএটিসি।

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।