ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট

ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট: ক্যারিয়ার প্রোফাইল - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট দাঁতের ডাক্তারের অধীনে কাজ করেন এবং দন্ত চিকিৎসকে সাহায্য করেন। চিকিৎসার কাজে সহযোগিতার পাশাপাশি একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট ডেন্টাল ল্যাবরেটরিতেও টেকনিশিয়ান হিসেবে কাজ করেন।

এক নজরে একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট

সাধারণ পদবী: ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট, ডেন্টাল টেকনিশিয়ান
বিভাগ: স্বাস্থ্য ও চিকিৎসা
প্রতিষ্ঠানের ধরন: সরকারি, বেসরকারি
ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম, চুক্তিভিত্তিক
লেভেল: এন্ট্রি
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য অভিজ্ঞতা সীমা: ১ – ২ বছর
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য বেতনসীমা: ৳১২,০০০ – ৳২০,০০০
এন্ট্রি লেভেলে সম্ভাব্য বয়সসীমা: প্রযোজ্য নয়
মূল স্কিল: দাঁত-মুখের গঠন ও চিকিৎসা সংক্রান্ত জ্ঞান, দাঁতের চিকিৎসায় ব্যবহৃত মেডিকেল ডিভাইস চালনা, মেডিকেল ল্যাব ব্যবহারের দক্ষতা, মেডিকেল রিপোর্ট তৈরি
বিশেষ স্কিল: সেবার মানসিকতা থাকা, ধৈর্য, গভীর মনোযোগ, যোগাযোগের দক্ষতা

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট কোথায় কাজ করেন?

  • সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে;
  • বেসরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রে;
  • আইনশৃঙ্খলা ও সামরিক বাহিনীর চিকিৎসা বিভাগে;
  • ব্যক্তিগত ক্লিনিকে।

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট কী ধরনের কাজ করেন?

  • দাঁত বাঁধানো, উঠানো, স্কেলিং, ফিলিংসহ দাঁতের যেকোন চিকিৎসায় ডেন্টিস্টকে সাহায্য করা
  • ডেন্টিস্টকে সার্জারির সময় সাহায্য করা
  • চিকিৎসার বিভিন্ন ইন্সট্রুমেন্ট প্রস্তুত রাখা ও প্রয়োজন অনুযায়ী ডেন্টিস্টকে সরবরাহ করা
  • চিকিৎসার ইন্সট্রুমেন্টগুলো জীবাণুমুক্ত করা
  • ডেন্টাল ল্যাবে কাজ করা
  • ডেন্টিস্ট এর তত্বাবধায়নে ছোটখাটো সমস্যার চিকিৎসা প্রদান করা
  • উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সরকারিভাবে নিয়োগপ্রাপ্ত হলে প্রাথমিক দাঁতের চিকিৎসা প্রদান করা
  • প্রাইভেট চেম্বারের রক্ষণাবেক্ষণ ও আগত রোগীদের তত্ত্বাবধান করা

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টের কী ধরনের যোগ্যতা থাকতে হয়?

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টকে অবশ্যই ডিপ্লোমা ইন মেডিকেল টেকনোলজি (ডেন্টাল) ডিগ্রিধারী হতে হবে। এছাড়া স্নাতক পর্যায়ে বিএসসি ইন হেলথ টেকনোলজি (ডেন্টিস্ট্রি) ডিগ্রির সুযোগ আছে।

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টের কী ধরনের দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

  • একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টকে অবশ্যই নির্ভুলভাবে কাজ করতে হবে। তার কাজের উপর অনেকাংশে চিকিৎসার মান নির্ভর করছে।
  • স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতন হতে হবে।
  • দাঁতের চিকিৎসায় ব্যবহৃত বিভিন্ন ইন্সট্রুমেন্ট চালনা করার পূর্ণাঙ্গ জ্ঞান থাকতে হবে।
  • রিপোর্ট তৈরীর দক্ষতা থাকতে হবে।
  • সময়ানুবর্তি হতে হবে।
  • রোগী সামলাবার দক্ষতা থাকতে হবে।
  • দাঁতের ছোটখাটো সমস্যার প্রাথমিক চিকিৎসার পূর্ণাঙ্গ জ্ঞান থাকতে হবে।

কোথায় প্রশিক্ষণ নেবেন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্ট হতে চাইলে?

বাংলাদেশে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অধীনে সরকারি ইন্সটিটিউট অফ হেলথ টেকনোলজির সংখ্যা মোট ৮ টি। এগুলোর  অবস্থান ঢাকা, রাজশাহী, বগুড়া, চট্রগ্রাম, রংপুর, বরিশাল, সিলেট, ঝিনাইদহ। এগুলো ছাড়াও বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রোফেশনালস এর অধীন(BUP) আর্মড ফোর্সেস মেডিকেল ইন্সটিটিউট ও বাংলাদেশ কারিগরি শিক্ষা বোর্ড অনুমোদিত বেসরকারি মোট ১০০ টির বেশি প্রতিষ্ঠানে ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ইন ডেন্টাল টেকনোলজি ডিগ্রি দেওয়া হয়।

ডেন্টাল টেকনোলজিতে ৪ বছর মেয়াদী ডিপ্লোমা ডিগ্রি পাশের পর ঢাকা, রাজশাহী ও চট্রগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে বিভিন্ন বেসরকারি প্রতিষ্ঠান থেকে ৪ বছর মেয়াদী স্নাতক পর্যায়ের বিএসসি ইন হেলথ টেকনোলজি (ডেন্টিস্ট্রি) ডিগ্রি দেওয়া হয়। তবে এ ডিগ্রিধারীদেরও প্রাইভেট প্র্যাক্টিস এর কোন সুযোগ নেই। এমনকি বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (BCS) পরীক্ষায় স্বাস্থ্য ক্যাডার পদে আবেদনের সুযোগ নেই।

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টের মাসিক আয় কেমন?

সরকারি চাকরিতে মূল বেতন ১২৫০০ টাকা। এছাড়া সরকারি হাসপাতালে কাজের পাশাপাশি বিকাল থেকে প্রাইভেট চেম্বারে পার্ট টাইম কাজের সুযোগ থাকে। সপ্তাহে ২/৩ দিন পার্ট টাইম কাজ করলে শুরুতে মাসে ৫/৬ হাজার টাকা পাওয়া যায়।  ১০-১৫ বছর কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে শুধু পার্ট টাইম কাজ থেকেই মাসে ১৮-২৫ হাজার টাকা উপার্জন সম্ভব। তবে পার্ট টাইমে কাজের উপার্জন নির্ভর করে প্রাইভেট চেম্বারের ডেন্টিস্টের উপার্জনের উপর। এছাড়া বেসরকারি হাসপাতালের দাঁতের বিভাগ ও বিভিন্ন ডেন্টাল ক্লিনিকে ১৫-২০ হাজার টাকা বেতনের চাকরি পাওয়া সম্ভব।

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টের ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে?

একজন ডেন্টাল অ্যাসিস্ট্যান্টের ক্যারিয়ারের বিকাশ খুবই সীমিত। তবে প্রাইভেট চেম্বার ও ছোটখাটো ক্লিনিকে শুরুরে কাজ করে অভিজ্ঞতা সঞ্চয় করলে বড় হাসপাতালে কাজের সুযোগ পাওয়া যায়। অনেকে ডিপ্লোমা ডিগ্রি পাশের পর ডেন্টিস্ট্রিতে বিএসসি ডিগ্রি নিলেও বর্তমান প্রেক্ষাপটে বাড়তি কোন সুবিধা পাচ্ছেনা কারণ এ ডিগ্রি বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যান্ড ডেন্টাল কাউন্সিল(BM&DC) স্বীকৃত নয়। ফলে ৪ বছর মেয়াদী বিএসসি ডিগ্রি থাকা সত্ত্বেও স্বাধীনভাবে চিকিৎসা প্রদানের কোন সুযোগ নেই। ডেন্টাল টেকনোলজিতে ডিপ্লোমা ডিগ্রির পাশাপাশি বিদেশে গিয়ে আরো উন্নত প্রশিক্ষণ নিলে বিদেশে কাজের সুযোগ পাওয়া যায়। মধ্য প্রাচ্যে বাংলাদেশি মেডিকেল টেকনোলজিস্টদের প্রচুর চাহিদা। তবে বিদেশে কাজ করতে চাইলে কাজে দক্ষতার পাশাপাশি ইংরেজি ভাষা আয়ত্ত্বে আনতে হবে।

Loading

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।