বিসিএস খাদ্য: সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক

ক্যারিয়ার কন্টেন্ট - ক্যারিয়ারকী (CareerKi)

সাধারণ পদবী:  সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক

বিভাগ:  খাদ্য অধিদপ্তর

কর্মস্থলঃ  জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়, সাইলো

ক্যারিয়ারের ধরন: ফুল টাইম

লেভেল: এন্ট্রি

অভিজ্ঞতা: পূর্ব অভিজ্ঞতার প্রয়োজন নেই। বিসিএস (খাদ্য) ক্যাডার হিসেবে উত্তীর্ণ হলে বাংলাদেশ লোক প্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ৬ মাসের প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়। এছাড়া খাদ্য অধিদপ্তর থেকে ক্যাডারদের বিভাগীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়।

বেতন সীমা: জাতীয় বেতন স্কেলের নবম গ্রেড অনুযায়ী মূল বেতন ২২ হাজার টাকা। কর্মস্থল অনুযায়ী বাড়ি ভাড়া ও অন্যান্য ভাতা মিলিয়ে শুরুতে মাসিক বেতন ৩৫-৩৭ হাজার

বয়স সীমা:  বিসিএস সার্কুলার যে মাসে দেওয়া হবে সে মাসের প্রথম দিন একজন প্রার্থীর বয়স ২১-৩০ এর মধ্যে হতে হবে। তবে মুক্তিযোদ্ধা সনদধারী ব্যক্তিদের সন্তান, পৌত্র-পৌত্রী ও স্বাস্থ্য ক্যাডারদের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর। আদিবাসী প্রার্থীদের জন্য সর্বোচ্চ বয়সসীমা ৩২ বছর  

মূল স্কিল : সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রককে খাদ্য অধিদপ্তরের প্রশাসনিক ও মাঠ পর্যায়ের কাজে অভিজ্ঞ হতে হবে । সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলিকে গম সাইলোর বিভিন্ন অপারেশনে পারদর্শী হতে হবে।

বিশেষ স্কিল:  বিশ্লেষণী দক্ষতা, নেতৃত্ব দেবার দক্ষতা, সমস্যা সমাধানের দক্ষতা

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডার কোন ধরনের প্রতিষ্ঠানে কাজ করেন?

কর্মজীবনের শুরুতে একজন সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয়ে কাজ করেন

সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী সরকারি গম সংরক্ষণাগার বা সাইলোতে কাজ করেন

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডার কী ধরনের কাজ করেন?

একজন সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রকের মূল কাজ জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে সহায়তা করা। জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় থেকে খাদ্য অধিদপ্তরের বিভিন্ন কার্যক্রম যেমন ধান-গম সংগ্রহ, ধান-গম সংরক্ষণাগার নির্মান ও মজুদ রাখা, ওএমএস খাতে সুলভ মূল্যে বিভিন্ন খাদ্যদ্রব্য বিক্রি, খাদ্যদ্রব্যের মূল্য সহনশীল পর্যায়ে রাখা সহ আরো অনেক কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়। সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রক জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রককে এসকল প্রকল্প বাস্তবায়নে সাহায্য করেন।

সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী গমের সাইলোর প্রয়োজনীয় যান্ত্রিক কার্যাবলি সম্পাদন করেন, সাইলোর যন্ত্রাংশে কোন ধরনের সমস্যা হলে তা সামধান করেন।

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারের শিক্ষাগত যোগ্যতা কী?

উচ্চমাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষা পাশের পর কোন স্বীকৃত প্রতিষ্ঠান থেকে ৪ বছর মেয়াদী যেকোন বিষয়ে ডিগ্রী থাকলেই সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রক পদের জন্য যোগ্য বিবেচিত হন। তবে শিক্ষাজীবনের যে কোন পর্যায়ে ( মাধ্যমিক, উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক) একটির বেশি তৃতীয় বিভাগ থাকলে অযোগ্য বিবেচিত হবে  সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী হতে চাইলে যন্ত্র কৌশলে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি বা সমমানের ডিগ্রি থাকতে হবে।

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারের কী কী দক্ষতা ও জ্ঞান থাকতে হয়?

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারকে অবশ্যই খাদ্য অধিদপ্তরের কার্যাবলি সম্পর্কে জানতে হবে ।

খাদ্য অধিদপ্তরের বিভিন্ন প্রকল্প যেমন ধান-গম সংগ্রহ, সুলভ মূল্যে পণ্য বিক্রি, খাদ্যদ্রব্য মজুদকরণ সম্পর্কে জ্ঞান রাখতে হবে। একজন সরকারি কর্মমর্তা হিসেবে বিভিন্ন সংস্থার সাথে নেগোসিয়েশন করার দক্ষতা থাকতে হবে এবং অবশ্যই যে কোন প্রকল্প বা দাপ্তরিক কাজে অধিনস্ত দলকে নেতৃত্ব দেবার দক্ষতা থাকতে হবে। সরকারি একজন কর্মকর্তা হিসেবে অবশ্যই সেবাদানের মানসিকতা থাকতে হবে এবং জরুরি প্রয়োজনে যে কোন মূহুর্তে কাজ করার সামর্থ্য থাকতে হবে।

খাদ্য অধিদপ্তরের একজন প্রকৌশলীকে উক্ত জ্ঞান ও দক্ষতা অর্জনের পাশাপাশি খাদ্য গুদামের বিভিন্ন যন্ত্রাংশের ক্রিয়াপদ্ধতি সম্পর্কে জ্ঞান এবং যন্ত্রাংশের যে কোন সমস্যা সমাধানের দক্ষতা থাকতে হবে।

কোথায় পড়াশোনা করবেন বিসিএস খাদ্য ক্যাডার (প্রকৌশল) হতে চাইলে?

সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী হতে চাইলে যন্ত্র প্রকৌশলে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং ডিগ্রি থাকতে হবে। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়(BUET), খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(KUET), রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(RUET), চট্রগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(CUET), ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজি(IUT), আহসানউল্লাহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়(AUST), ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি অফ বিজনেস,এগ্রিকালচার এন্ড টেকনোলজি(IUBAT), সোনারগাঁ ইউনিভার্সিটিতে মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এ বিএসসি ডিগ্রি দেওয়া হয়।

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারের কাজের ক্ষেত্র ও সুযোগ কেমন?

খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মক্ষেত্র সারাদেশ ব্যাপি বিস্তৃত দেশের প্রতিটি উপজেলায় খাদ্য নিয়ন্ত্রকের কার্যালয় রয়েছে একজন সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রক শুধু মাত্র ‘এ’ গ্রেড জেলায় পদ পান খাদ্য অধিদপ্তরের অধীনে ৬ টি সাইলো রয়েছে সরকার আরো ৩ টি রাইস সাইলো নির্মানের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক পদকে নন ক্যাডার থেকে ক্যাডার পদ করার পরিকল্পনা করেছে। এ পরিকল্পনা বাস্তবায়িত হলে বিসিএস খাদ্য ক্যাডার হিসেবে কাজের সুযোগ বৃদ্ধি পাবে 

একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারের মাসিক আয় কেমন?

কর্মজীবনের শুরুতে একজন সহকারীখাদ্য নিয়ন্ত্রক/সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী গ্রেড-৯ অনুযায়ী ৩২-৩৭ হাজার টাকা বেতন পান। এ গ্রেডে সর্বোচ্চ বেতন ৫৩ হাজার টাকা।

ক্যারিয়ার কেমন হতে পারে একজন বিসিএস খাদ্য ক্যাডারের?

কর্মজীবনের শুরুতে একজন সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের অধীনে কাজ কাজ করেন। এরপর পদোন্নতি হয়ে জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক, আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রক (উপ-পরিচালক), পরিচালক, অতিরিক্ত মহাপরিচালক এবং ক্যারিয়ারের শীর্ষে খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক হবার সুযোগ পান। এটি অতিরিক্ত সচিব সমমানের একটি পদ।

একজন সহকারীরক্ষণ প্রকৌশলী ও পদোন্নতি পেয়ে ধীরে ধীরে প্রধান প্রকৌশলী হন এবং তিনিও খাদ্য অধিদপ্তরের পরিচালক, অতিরিক্ত-মহাপরিচালক এবং মহাপরিচালক হবার সুযোগ পান।

 

কেন নেবেন ক্যারিয়ার টেস্ট?

  • সরাসরি ইন্টারভিউর কল পেতে
  • সরাসরি চাকরির পরীক্ষা দিতে
  • চাকরি পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে
  • চাকরির জন্য দরকারি স্কিল অর্জন করতে
ক্যারিয়ার টেস্টে যান

One thought on “বিসিএস খাদ্য: সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক

Leave a Reply

আপনার নাম ও ইমেইল ঠিকানা দেয়া আবশ্যক। তবে মতামতের সাথে ইমেইল দেখানো হবে না।